সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০২:৩৪ অপরাহ্ন

প্রকাশিত সংবাদের ত্রুতি স্বীকার

সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে চলেছে সোশাল মিডিয়া। বিভিন্ন সাইডে বিভিন্নভাবে নানান মানুষের পোষ্ট ষ্টেটাস। তার মধ্যে জনপ্রিয় একটা সোশাল মিডিয়া ফেসবুক। ফেসবুকে যার যেমন ইচ্ছে সে তেমনভাবে বিভিন্ন জায়গা থেকে লেখা সংগ্রহ করে বা নিজের মনেরভাব প্রকাশ করে থাকেন। ফেসবুকে কোন পোষ্টের বাধ্যবাধকতা নেই। যার যেমন ইচ্ছে সে তেমন পোষ্ট বা ষ্টেটাস দিতে পারে। এই রকমভাবেই একটা লেখা সংগ্রহ করে ষ্টেটাস বা পোষ্ট করেন ইয়াসির আরাফাত মিলন। সেই পোষ্টের শিরোনাম ছিলো ‘শোকের মাস শুরু; পিতা ক্ষমা করো আমরা তোমাকে রক্ষা করতে পারি নি’। তিনি গত ০১ আগষ্ট তারিখে পোষ্টটি নিজের ফেসবুকে শেয়ার করেন ও একটি অনলাইন নিউজ পোর্টালে লেখাটি পাবলিষ্ট করা হয়। এরই মধ্যে জে. আলক চৌধুরী লেখাটি নিজের বলে দাবী করেন। আসলেই সত্য ঘটনা যে লেখাটি অলক চৌধূরীর।

এ বিষয়ে অলক চৌধরী বলেন- ইয়াসির আরাফাত মিলন ১ আগষ্টে ফেসবুকে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে আমার লেখা সম্পূর্ণ কপি করে নিজ টাইম লাইনে পোষ্ট করেছেন ও একটি নিউজ পোর্টালে তা পাবলিষ্ট করা হয়। আমাকে না জানিয়ে আমার লেখা কপি করে পোষ্ট করায় আমি মনক্ষুন্ন হয়েছি। আমি এ ধরণের কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

এদিকে ইয়াসির আরাফাত মিলন বলেন- আমি কপি করে ফেসবুকে পোষ্ট করেছি সত্য। কারণ অলক চৌধূরীর লেখাটি আমার কাছে ভালো লেগেছিলো তাই পোষ্ট করেছিলাম। তবে, কখনো লেখাটি আমার নিজের বলে বাদী করি নাই। এমন কি লেখার কোথাও আমার নাম উল্লেখ নাই। তবে, অলক চৌধুরীর সাথে ফোনে কথা বলার পরে তিনি লেখাটি নিয়ে আপত্তিসহ অসন্তুস প্রকাশ করায় লেখার নিচে আমি তখন তিনার নাম লিখে দিই। লেখাটি আমার বলে দাবী করেছি এ কথাটি সম্পন্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। একটি স্বার্থনেশীমহল সুযোগ বুঝে নিজেদের কে অলক চৌধূর’র কাছে ভালো সাজার জন্য আমাকে নিয়ে ফেসবুকে নানান রকম ষ্টেটাসসহ কমেন্ডস দিয়েছে। যাতে করে প্রখ্যাত অলক চৌধুর কাছ থেকে সুবিধা নেওয়া যায়। মানুষের সহানুভূতি পাওয়ার জন্য যারা আবেগ নিয়ে খেলে, যাকে বলা যেতে পারে আবেগের পরজীবী। এই ধরণের মানুষগুলো খুবই ভঙ্গুরভাবে উপস্থাপন করে অন্যের সহানুভূতি যোগাড় করবে। ঠিক তেমনই করছে কিছু কুচক্রী মহল নিজেদের স্বার্থ হাসিল করার জন্য। আমাকে সমাজে ও সোশাল মিডিয়ায় হেয় প্রতিপন্ন করেছে। তাদের বিরুদ্ধে আমি আইনগত ব্যবস্থা নিবো।

এক ব্যক্তির লেখা আর এক ব্যক্তির কাছে ভালো লাগতেই পারে। এরকমই যুগযুগ থেকে হয়ে আসছে। একটা কপি থেকে আর একটি নতুন ভাবনা জাগে প্রত্যেকটি মানুষের ভেতর। সেই কপি থেকে নতুন নতুন ভাবনা সৃষ্টি হয়। কারণ সেইটাকে আরও কি কি করলে ভালো করা যায় সেটা ভেবেই নতুন থিম তৈরী করা হয়।

অনলাইন পোর্টালের কর্তৃপক্ষ জানান, অনাকাঙ্ক্ষিত ভুলের জন্য আমরা আন্তরিকভাবে দুঃখিত।

Please Share This Post in Your Social Media

১০

© All rights reserved © 2020 dailyamaderchuadanga.com