বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১০:৩৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম

চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশনের আয়োজনে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি পালন

 

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি:
চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশনের আয়োজনে বৃক্ষরোপন করা হয়েছে। রোববার সকাল ১০টায় সদর উপজেলার শংকরচন্দ্র ইউনিয়নের দীননাথপুর দারুল উলুম মাদ্রাসা এতিমখানা ও লিল্লাহ বোর্ডিং প্রাঙ্গনে এ বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী ও ছাত্রদের মধ্যে ফলজ বৃক্ষ প্রদান করা হয়। চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশনের সভাপতি আলিফ হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বিশিষ্ট্য সুমিষ্ট উপস্থাপক মুন্সি আবু সাঈফ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সহযোগী অধ্যাপক মুন্সি আবু সাঈফ বলেন, ‘কবি মোতাহের হোসেন চৌধুরী তার এক প্রবন্ধে বলেছেন বৃক্ষ আমাদের নিরব ভাষায় জিবনের সার্থকতার গান শোনায়, যা তার প্রাপ্তি তাই তার তাই। একটা আজকে রোপন করা হলো, তোমরা যেমন শিশু বয়সে জন্মগ্রহণ করো। তারপর আস্তে আস্তে বেড়ে ওঠো। বড় হও, লেখাপড়া শেখো। বৃক্ষও রোপন করা হয়, তারপর সে বেড়ে ওঠে। তারপরে সে ফলে ফুলে নিজেকে সমৃদ্ধ করে। নিজেকে বড় করে তোলে। আমরা সবাই ফুল ভালোবাসী। আমাদের একজন কবি বলেছেন, যদি দুটো পয়সা জোটে, একটা পয়সা দিয়ে খাবার কিনো, আরেকটা পয়সা দিয়ে ফুল কিনো। ফুল হলে গাছটি সৌরভ দেয়। ফল হলে খাবার দেয়। গাছটি বড় হওয়ার তার সন্তান আসে। সেটাই ফল এবং ফুল।
এখন ভেবে দেখো, আমার সন্তানকে কেউ কেড়ে নিতে চাই, আমার কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে চাইলে, আমি কি সেই সন্তান দেবো? আমার প্রাণের থেকেও সে প্রিয়। কিন্তু বৃক্ষ যখন বড় হচ্ছে সে নিরবে কোনো কথা না বলে, তার সন্তানটিকে আমাদের কাছে দিয়ে দিচ্ছে। জিবনকে শান্ত করতে হলে পরের মাঝে বিলিয়ে দিতে হবে। পরের মাঝে বিলিয়ে দেওয়া মানে আমার জিবনের সবকিছু দান করে দেওয়া নয়। বৃক্ষের কাছ থেকে শিক্ষা নিতে হবে।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, রবীন্দ্রনাথ জীবনকে নদীর সাথে তুলনা করেছেন। মোতাহের হোসেন চৌধুরী বৃক্ষের সাথে তুলনা করেছেন। গঙ্গা নদী সেই মান সরোবর থেকে উৎপন্ন হয়ে সাগরে যেয়ে মিশছে। আমাদের দেশের নদীগুলো বঙ্গোপসাগরের সাথে মিশছে। নদী অন্যের মধ্যে বিলিন হয়ে তার অস্তিত্বকে হারিয়ে ফেলেছে। সাগরে যেয়ে তার আর নিজের নাম থাকলো না। কিন্তু বৃক্ষ মাথা তুলে দাড়িয়ে থাকে। জিবনে মাথা তুলে দাড়িয়ে থাকা হলো, ওই বৃক্ষের কাছ থেকে শিক্ষা নেওয়া। শিক্ষকদের কথা শুনতে হবে। শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগড়। আর বৃক্ষের মতো মাথা উচু করে শতভাগ সততার সাথে জিবন যাপন করতে হবে।

এ সময় তিনি চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, শহরের মানুষের কথা শোনার অনেক লোক আছে। প্রত্যান্ত অঞ্চলে মানুষের কথা শোনার লোক খুব কম। চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশন এখানে এসে এ রকম সুন্দর একটি ফলজ বৃক্ষরোপন ও প্রদানের আয়োজন করছে। এটা বৃক্ষরোপনের উপযুক্ত সময়।তাদেরকে ধন্যবাদ ও সাধুবাদ জানায়।

চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা মেহেরাব্বিন সানভীর পরিচালনায় এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, দীননাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি ওমর ফারুক, দীননাথপুর দারুল উলুম মাদ্রাসা এতিমখানা ও লিল্লাহ বোর্ডিং এর প্রধান শিক্ষক মাওলানা শফিকুর রহমান, শিক্ষক মাওলানা আজগর আলী, মাওলানা মনিরুজ্জামান, চুয়াডাঙ্গা ফাউন্ডেশনের সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য হাদিয়ুজামান প্রান্ত, রমজান আলী, আশিক জোয়ার্দ্দার প্রমুখ

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com