মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৩২ পূর্বাহ্ন

প্রশ্নের মুখে কোভ্যাক্সিনের ভবিষ্যৎ

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা WHO হঠাৎই রাষ্ট্রসংঘে কোভ্যাক্সিনের সরবরাহে স্থগিতাদেশ জারি করে দিল। শনিবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এক নির্দেশিকায় জানিয়েছে, রাষ্ট্রসংঘের এজেন্সিগুলিকে ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিনের সরবরাহ আপাতত বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। যাতে ওই সংস্থাটির যে ত্রুটিগুলি প্রকাশ্যে এসেছে তা ঠিক করার সুযোগ পায়। WHO -র বিবৃতি অনুসারে কোভ্যাক্সিন প্রাপ্ত দেশগুলিকে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে, তবে উপযুক্ত পদক্ষেপগুলি কী হবে তা নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যদিও বলেছে যে ভ্যাকসিনটি কার্যকর এবং কোন নিরাপত্তা উদ্বেগ নেই, তবে রপ্তানির জন্য উৎপাদন স্থগিত করার ফলে কোভ্যাক্সিন সরবরাহে বিঘ্ন ঘটবে।

১৪ থেকে ২২ মার্চ পর্যন্ত WHO এর ইমার্জেন্সি ইউজ লিস্টিং (EUL) পরিদর্শনের ফলাফলের প্রতিক্রিয়া হিসাবে স্থগিতাদেশটি জারি করা হয়েছে এবং ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারকদের রপ্তানির জন্য কোভ্যাক্সিনের উত্পাদন স্থগিত করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই স্থগিতাদেশের পর ভারত বায়োটেক তরফে এখনো কোনো প্রতিক্রিয়া মেলেনি। শুক্রবার, ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারক সংস্থাটি বলেছিল যে তারা কোভ্যাক্সিনের উৎপাদন ধীরে ধীরে কমিয়ে দিচ্ছে ,কারণ দেশে সংক্রমণ হ্রাসের সাথে টিকার চাহিদা কমে যাচ্ছে।

ভারত বায়োটেক ভারতের ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল (ডিসিজিআই) এবং ডাব্লুএইচওর কাছে জমা দেওয়ার জন্য একটি সংশোধনমূলক এবং প্রতিরোধমূলক কর্ম পরিকল্পনা তৈরি করছে। ইতিমধ্যেই কোটি কোটি ভারতীয় এই ভ্যাকসিন পেয়েছেন, WHO বলছে চিন্তার কোনও কারণ নেই। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা স্পষ্ট করে দিয়েছে, কোভ্যাক্সিনের গুণমান বা সুরক্ষা নিয়ে তাঁদের কোনও সংশয় নেই। এই ভ্যাকসিন পুরোপুরি সুরক্ষিত। তবে এই সাসপেনশনের জেরে রাষ্ট্রসংঘের মাধ্যমে বিভিন্ন গরিব দেশে যে কোভ্যাক্সিন সরবরাহ হত, তা আপাতত বন্ধ থাকবে।

সূত্র : www.reuters.com

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 dailyamaderchuadanga.com