বুধবার, ০৬ Jul ২০২২, ০৩:৩১ পূর্বাহ্ন

মোবাইল ফোনের চিপ সংকট, কী হবে জানুয়ারীতে?

বড়দিনের ছুটি, থার্টি ফার্স্ট উদযাপন ও চীনা নববর্ষের দীর্ঘতম ছুটির কারণে উৎপাদন বন্ধ থাকায় মোবাইল ফোনের চিপ সংকট সহসাই দূর হচ্ছে না। একইসঙ্গে শুরু হয়েছে মোবাইল ফোনের ডিসপ্লে প্যানেল সংকট। এই দু’টি সংকটের কারণে মোবাইল ফোনের উৎপাদন কমেছে। দেশে স্টক শেষ হওয়ার পথে। এ দু’টি উপাদান উৎপাদনে না ফিরলে জানুয়ারী মাস থেকেই সংকট বোঝা যাবে বলে সংশ্লিষ্টরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

বাংলাদেশ মোবাইল ফোন ইমপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমপিআইএ)-এর যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ মেসবাহউদ্দিন বলেন, ডলারের দাম বেড়েছে ৪ থেকে ৫ শতাংশ। জাহাজ ভাড়া বেড়েছে ১ থেকে ২ শতাংশ। চিপসেটের দাম বেড়েছে ১২-১৪ শতাংশ। সব মিলিয়ে এই খাতে খরচ বেড়ে গেছে ১৫ থেকে ১৭ শতাংশ। স্বাভাবিকভাবেই মোবাইলের দাম বাড়বে। এরইমধ্যে ভিভো মোবাইল ফোন দাম বাড়িয়েছে সেট প্রতি অন্তত এক হাজার টাকা। দাম বেড়েছে মটোরোলা মোবাইলের। জানুয়ারি মাসে স্যামসাং তাদের মোবাইল ফোনের দাম বাড়াবে বলে জানা গেছে।

তবে, দেশে সংযোজিত স্মার্টফোন বাজারে ছেড়ে হইচই ফেলে দিয়েছে শাওমি। শাওমি দেশে তৈরী রেডমি ৯এ মডেলের সেটের দাম কমিয়েছে। দাম কমিয়েছে নকিয়াও। তিনি জানান, অপরদিকে গ্রে মার্কেটের (অবৈধ বাজার) আকার ৪০ শতাংশের মতো। এরইমধ্যে বাজারে ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ অবৈধ আইএমইআই (ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইকুইপমেন্ট আইডেন্টিটি)চালু রয়েছে। জানুয়ারি থেকে এপ্রিল মাস পর্যন্ত মোবাইল ফোনের জন্য খুব খারাপ সময় যেতে পারে। এই সময়ে বড় ধাক্কা আসতে পারে। সংকটে পড়বে মোবাইল ফোনের বাজার।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির চেয়ারম্যান শ্যাম সুন্দর সিকদার বলেছেন, ডিসেম্বরের মধ্যে দেশের মোবাইল উৎপাদকদের স্টক শেষ হয়ে যাবে। এটা আমাদের ভাবাচ্ছে। যে সংকট তৈরী হবে সেটা কিভাবে মোকাবিলা করা হবে তা নিয়ে পরিকল্পনা করতে হবে।

নাম ও পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে এক মোবাইল ফোন আমদানীকারক বলেন, মোবাইলের দাম বেড়ে যাওয়ায় তা আমদানী করে কেমন বাজার পাওয়া যাবে তা নিয়ে আমরা শঙ্কায় আছি। ফলে নিয়মিত এলসি (ঋণপত্র) খুলতে পারছি না। এ কারণে আমরা ক’একটি সিরিজ পণ্য মিস করেছি। এছাড়া করোনাকালে বিশাল অঙ্কের আর্থিক ক্ষতি হওয়ায় এখনও তা পুষিয়ে ওঠা সম্ভব হয় নি। এ কারণে আলোচিত ব্র্যান্ডের পরিবেশক হয়েও শক্ত হয়ে বাজারে থাকতে পারছি না। জানুয়ারী, ফেব্রুয়ারীতে প্রোডাক্ট পাবো কিনা তা নিয়েও শঙ্কা তৈরী হয়েছে।

অপো স্মার্টফোন সূত্রে জানা গেছে, ব্র্যান্ডটি অতি সম্প্রতি দুটো স্মার্টফোনের দাম কমিয়েছে। কিছু সেটের সঙ্গে উপহারও দিচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটির জনসংযোগ বিভাগ জানিয়েছে, তাদের ফোনের পর্যাপ্ত মজুত আছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, ডিসেম্বরে মোবাইল মার্কেটে ধীরগতি ভর করে। বিক্রি একেবারে তলানিতে নেমে যায়। বিক্রিতে প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে স্মার্টফোনের দাম কমানোর ঘোষণা দেওয়া হয়। নানা উপহার দিয়েও বিক্রি ধরে রাখার চেষ্টা করেন আমদানিকারকরা। নতুন বছরের প্রথম প্রান্তিক নিয়ে তাদের শঙ্কা দূর হচ্ছে না।

ক্রেতাদের মোবাইল ফোন কেনার অভ্যাসের ধরন উল্লেখ করে সংশ্লিষ্টরা বলেন, ক্রেতারা অপেক্ষায় আছেন নতুন বছরের নতুন মডেলের ফোন আসার। কিন্তু এবার নতুন বছরেও সংকট থাকলে মোবাইলের সংকট যেমন বাড়বে, বাড়তে পারে দামও। সূত্র: বাংলাট্রিবিউন

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com