শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৫১ অপরাহ্ন

শিরোনাম
চুয়াডাঙ্গায় ভোক্তার অভিযানে দুই দোকান মালিককে জরিমানা, এক দোকান পাঁচ দিনের জন্য বন্ধ চুয়াডাঙ্গায় নিখোঁজের ১৫ দিন পর আখক্ষেত থেকে এক ব্যক্তির অর্ধ গলিত মরদেহ উদ্ধার চুয়াডাঙ্গায় ভারতীয় বুপ্রেনরফাইন ইনজেকশনসহ দুই মাদক কারবারি আটক মোটরসাইকেলে ঘুরতে বেরিয়ে গাছের সাথে ধাক্কায় দশম শ্রেণির ছাত্র নিহত, আরেক বন্ধু আহত সেনাবাহিনীর জন্য সর্বাধুনিক অস্ত্র কিনছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় আনসার ভিডিপির উপজেলা সমাবেশ অনুষ্ঠিত চুয়াডাঙ্গায় পাওয়ারট্রলির সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে মোটরসাইকেল চালক নিহত, এক নারী আহত চুয়াডাঙ্গায় ভোক্তার অভিযানে দুটি প্রতিষ্ঠানের মালিককে জরিমানা

লাশ নিয়ে ফেরার পথে যোগ হলো আরও ৩ লাশ

আহসান আলম:

ঢাকা থেকে সাহেরা খাতুনের লাশ নিয়ে চুয়াডাঙ্গায় ফেরার পথে মানিকগঞ্জে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে চুয়াডাঙ্গা নিরাময় নার্সিং হোমের একটি অ্যাম্বুলেন্স। দুর্ঘটনায় অ্যাম্বুলেন্সের হেলপারসহ বাবা-ছেলে নিহত হয়েছে। রোববার রাতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ বাজারের অদূরে ওই দুর্ঘটনা ঘটে। আকিজ টেক্সাইল মিলস’র দাঁড়িয়ে থাকা একটি বাসের পিছনে চলন্ত অ্যাম্বুলেন্স ধাক্কা দিলে অ্যাম্বুলেন্সটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে রক্তাক্ত জখম হয় অ্যাম্বুলেন্সের চালক ও হেলপারসহ একই পরিবারের আরও ৩ জন।

পরে, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় অ্যাম্বুলেন্সের হেলপার চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার দক্ষিণ হাসপাতালপাড়ার আব্দুল আজিজ পুটের ছেলে সাহাবুল হোসেন (২২), দামুড়হুদার গুলশানপাড়ার গোলাম রসুল (৮০) ও তার ছেলে গোলাম সোহরাব মিথুন (৪৫)। দুর্ঘটনায় জখম অ্যাম্বুলেন্স চালক চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার গুলশানপাড়ার সাইফুল ইসলামকে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে এবং গোলাম রসুলের মেয়ে বিথি খাতুনকে (৩০) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে।

দুর্ঘটনায় নিহত গোলাম রসুলের ভাগ্নে দামুড়হুদার ইব্রাহিমপুরের রাজন আশরাফ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রোববার সন্ধায় আমার মামি সাহেরা খাতুন স্ট্রোকে আক্রান্ত হলে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে রাত দেড়টার দিকে জরুরি ভাবে তাকে নেয়া হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সাথে যান গোলাম রসুল, গোলাম সোহরাব ও বিথি খাতুন। ঢাকায় নেয়ার পথে সাহেরা খাতুন মারা যান। সাহেরা খাতুনের লাশ একই অ্যাম্বুলেন্স যোগে বাড়িতে নেয়া হচ্ছিল। পথিমধ্যে মানিকগঞ্জ পৌছুলে দুর্ঘটনায় মারা যায় অ্যাম্বুলেন্সের হেলপার এবং তার মামা গোলাম রসুল ও মামাতো ভাই গোলাম সোহরাব। আহত হয় বিথি খাতুন। তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে।

এদিকে, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে দুর্ঘটনার কবলে পড়া অ্যাম্বুলেন্সটি (ঢাকা মোট্রো-চ-৭১-৪৪৩৬) চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল এলাকার ডিজিটাল মোড়ে অবস্থিত নিরাময় নার্সিং হোমের মালিক সাইদুর রহমানের।

অ্যাম্বুলেন্স মালিক সাইদুর রহমান বলেন, রোববার রাতে দামুড়হুদার একটি রোগী নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উদ্দেশ্যে যায় তার অ্যাম্বুলেন্সটি। যাওয়ার পথে ওই রোগী মারা যায়। সকালে খবর আসে লাশ নিয়ে ফেরার পথে অ্যাম্বুলেন্সটি মানিকগঞ্জে দুর্ঘটনার কবলে পড়েছে। ওই ঘটনায় হেলপার সাহাবুল হোসেনসহ একই পরিবারের আরও দু’জন মারা গেছে। অ্যাম্বুলেন্স চালক সাইফুল ইসলামকে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুর্ঘটনার কবলে পড়া অ্যাম্বুলেন্সটি মানিকগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে রাখা হয়েছে।

অ্যাম্বুলেন্সের হেলপার নিহত সাহাবুল হোসেনের বাবা আব্দল আজিজ পুটে বলেন, রোববার রাত ১ টার দিকে সাহাবুল বাড়ী থেকে বের হয়। একটি রোগী নিয়ে ঢাকায় যাবে বলে বাড়ীতে বলে যায়। কে জনতো সে আর ফিরে আসবে না।

অপরদিকে, ছেলের মৃত্যুর খবরে সাহাবুল হোসেনের মা সহিদা বেগম ভেঙে পড়েছেন। তাদেরকে শান্তনা দিতে এলাকার মানুষ বাড়ীতে ভীড় করছেন। সন্তার হারানো শোকে বাবা-মা ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের কান্নায় এলাকার বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে। শেষ খবর পওয়া পর্যন্ত ময়নাতদন্ত ছাড়াই গতকাল সোমবার রাতে মরদেহ চুয়াডাঙ্গায় ফিরেছে।

Please Share This Post in Your Social Media

১৫

© All rights reserved © 2020 dailyamaderchuadanga.com