সোমবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
গাংনীর কল্যাণপুরে সংঘর্ষে ১০ জন আহত চুয়াডাঙ্গায় হাত-মুখ বাঁধা বয়স্ক স্বামী-স্ত্রীর রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার চুয়াডাঙ্গায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে মিনা দিবস উদযাপন ‘যাও পাখি বলো তারে’ সিনেমার টাইটেল গান প্রকাশ (ভিডিও) রিমোট দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে জীবন্ত তেলাপোকা! নতুন প্রযুক্তি আবিষ্কারের দাবি বিজ্ঞানীদের ছাপা কাগজে খাবার পরিবেশন বন্ধের নির্দেশ বাংলাদেশ সীমান্তের কাছে আরাকান আর্মি ও মিয়ানমারের সেনাদের গুলি বিনিময় সরকারের পতন ঘটিয়ে শাওন হত্যার জবাব দিব: মির্জা ফখরুল মদপান স্বাস্থ্যের জন্য ভাল, মন্তব্য ভারতের সুপ্রিম কোর্টের! আগামীকাল শনিবার মীনা দিবস, দিনব্যাপী নানা কর্মসূচি

চুয়াডাঙ্গায় অজ্ঞানপার্টির দৌরাত্ম দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে

চুয়াডাঙ্গায় অজ্ঞানপার্টির দৌরাত্ম দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ওদের হাত থেকে রেহাই পেতে এবং তাদেরকে রুখতে প্রশাসনিকভাবে পরিকল্পনার প্রয়োজন। একটি শংঘবদ্ধ চক্র প্রতিনিয়ত ওই ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে চুয়াডাঙ্গা জেলার আলমডাঙ্গা পশুহাট, দামুড়হুদা উপজেলার ডুগডুগী পশুহাট এবং আলমডাঙ্গা পশুহাটে যাওয়া বিভিন্ন ক্রেতাদের টার্গেট করে ওই চক্রটি। ইদানীং প্রতিটা হাটের দিনই কেউ না কেউ অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়ে খোয়াচ্ছেন নগদ টাকা। (২৭ ডিসেম্বর) সোমবারও ঘটেছে এমন ঘটনা।

ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার তালশারী গ্রামের লাল মোহাম্মদের ছেলে মতিয়ার রহমান (৬০) অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েছেন। ডুগডুগি পশুহাটে মহিশ কিনতে যাওয়ার পথে বাসের মধ্যে অজ্ঞানপার্টির খপ্পরে পড়েন তিনি। মতিয়ার রহমানকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। মতিয়ার রহমানকে উদ্ধার করা শাপলা পরিবহনের ব্যানারে চলা দোয়েল পরিবহনের বাসের সুপারভাইজার মিন্টু জানান, সোমবার বেলা ১২ টার দিকে জীবননগর থেকে ওই ব্যক্তি ডুগডুগী পশুহাটে যাওয়ার কথা বলে তাদের বাসে ওঠেন। দর্শনা হঠাৎপাড়া নামকস্থানে পৌঁছালে মিন্টু ওই ব্যক্তির কাছে ভাড়া চাইতে গেলে তাকে অচেতন অবস্থায় দেখে। তাকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন সুপারভাইজার মিন্টু। খবর পেয়ে বিকেলে অচেতন ব্যক্তির পরিবারের লোকজন চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে আসেন।

অচেতন ব্যক্তির শয্যাপাশে থাকা তার ভাবী আলিয়া খাতুনের কাছ থেকে অচেতন ব্যক্তির পরিচয় পাওয়া যায়। আলিয়া খাতুন বলেন, সোমবার মহিশ কেনার উদ্দেশ্যে বাড়ী থেকে বের হয় মতিয়ার রহমান। অচেতন হওয়ার খবর পেয়ে আমরা হাসপাতালে আসি। তার কাছে কতোটাকা ছিল সে বিষয়ে কিছুই বলতে পারে নি আলিয়া খাতুন।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. সোহরাব হোসেন বলেন, তাকে চেতনানাশক কিছু খাওয়ানো হয়েছে। আমরা প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে হাসপাতালে ভর্তি রেখে পর্যবেক্ষণ করছি। তার অবস্থা আশঙ্কামুক্ত কি-না ২৪ ঘন্টা পার না হলে কিছু বলা যাবে না।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com