বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

মন্ত্রীর হুমকি, পাল্টে যাবে সানির ‘মধুবন’র নাম ও কথা

বিনোদন ডেস্ক:

লাল-কালো-সাদা খোলামেলা পোশাক। বৃন্দাবনে রাধার বেশে একদা পর্ন-তারকা। রিমেক গানের স্রষ্টা ইসলামধর্মী শারিব-তোশী। একাধিক ক্ষেত্রে আপত্তি তুলে সদ্য মুক্তি পাওয়া সানি লিওনির গানের ভিডিও ‘মধুবন মে রাধিকা নাচে’ নিয়ে জোর বিতর্ক জারি।

রোববার (২৬ ডিসেম্বর) ভারতের মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নরোত্তম মিশ্র ইতিমধ্যেই সরাসরি ‘হুমকি’ দিয়েছেন মডেল-অভিনেত্রীকে। বলেন, সানি লিওনিকে তার ভিডিও নেটমাধ্যম থেকে সরিয়ে নিতে হবে ৭২ ঘণ্টার মধ্যে। অন্যথায় আমি আইনি পদক্ষেপ নেবো।

তার পরেই রাতে একটি বিবৃতি জারি করে গানের সংস্থা ‘সারেগামা’। সংস্থা জানিয়েছে, তারা বিতর্কিত গানের কথা এবং নাম বদলে দিতে প্রস্তুত।

১৯৬০-এর ছবি ‘কোহিনুর’র জনপ্রিয় গান ‘মধুবন মে রাধিকা নাচে’। তারই রিমেক ভিডিও হিসেবে তৈরি হয়েছে এই গানটি। এর আগেই ভিডিওটি নিষিদ্ধ করার দাবি তুলেছিলেন উত্তরপ্রদেশের মথুরার পুরোহিতেরা। তাদের অভিযোগ, রাধার নামে কুরুচিকর গান তৈরি হয়েছে। এই ভিডিও হিন্দুদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছে বলে দাবি করেছেন ওই পুরোহিতদের একাংশ।

রোববার মধ্যপ্রদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কয়েকজন বিধর্মী ক্রমাগত হিন্দুদের অনুভূতিতে আঘাত করছে। ভিডিওটি অত্যন্ত নিন্দনীয়। আমি সানি লিওনি, শারিব এবং তোশিকে সতর্ক করছি। তারা যদি তিন দিনের মধ্যে ক্ষমা না চান এবং গানটি সরিয়ে না দেন, তা হলে আমরা তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবো।

বিজেপির মন্ত্রীর এই হুঁশিয়ারির পরেই রাতে ‘সারেগামা’র বিবৃতি— ‘সাম্প্রতিক ঘটনাবলি এবং আমাদের সহ-নাগরিকদের ভাবাবেগের কথা মাথায় রেখে ‘মধুবন’ গানটির কথা এবং নাম বদলে দেব। আগামী তিন দিনের মধ্যে পুরোনো ভিডিওটি বদলে নতুন ভিডিও দেখা যাবে নেটমাধ্যমে।

শুধু সানি নন, নরোত্তমের তোপের মুখে পড়েছিলেন সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ও। পোশাকশিল্পী তার ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে নিজের তৈরি করা মঙ্গলসূত্রের বেশ কয়েকটি ছবি দিয়েছিলেন। সেই বিজ্ঞাপনে মডেলদের পোশাক নিয়েই আপত্তি তোলে সমাজের একাংশ। বিজ্ঞাপনে অন্তর্বাস পরে ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে দেখা গিয়েছে মডেলদের। তাদের গলায় মঙ্গলসূত্র।

সানির মতোই সব্যসাচীকে হুমকি দিয়েছিলেন নরোত্তম। বলেছিলেন, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যদি বাংলার পোশাক শিল্পী ওই মঙ্গলসূত্রের বিজ্ঞাপন সরিয়ে না নেন, তা হলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বিজেপির আইনি উপদেষ্টা আশুতোষ জে দুবে সব্যসাচীকে আইনি নোটিস পাঠালে সেই বিজ্ঞাপনটি সরিয়ে নেন তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com