সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম

বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে ক্যাশলেস সোসাইটির দিকে

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, ডিজিটাল কানেক্টিভিটি সম্প্রসারণে দেশে মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস (এমএফএস) অভাবনীয় অগ্রগতি অর্জন করেছে। আমাদের তুলনায় এমএফএস পৃথিবীর অনেক উন্নত দেশও সম্প্রসারণ করতে পারে নি। মোবাইল ফোন সবচেয়ে বেশী ব্যবহৃত ডিজিটাল ডিভাইস হওয়ায় এমএফএসের মাধ্যমে ক্যাশলেস সোসাইটির দিকে দ্রুত ধাবিত হচ্ছে বাংলাদেশ।

০৩ জুলাই শনিবার রাজধানীতে টেলিকম খাতের রিপোর্টারদের সংগঠন টেলিকম রিপোটার্স নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ (টিআরএনবি)’র উদ্যোগে আয়োজিত ‘ভাতা বিতরণে ডিজিটাল প্রযুক্তি : স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতার নিশ্চয়তা’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন তিনি।

টিআরএনবির সভাপতি রাশেদ মেহেদীর সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী নুরুজ্জামান আহমেদ।
অনুষ্ঠানে সমাজসেবা অধিদফরের মহাপরিচালক শেখ রফিকুল ইসলাম, প্রাথমিক শিক্ষার উপবৃত্তি প্রদান প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ইউসুফ আলী, বেসিস সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবির, অ্যামটবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিআইএম নূরুল কবির এবং নগদ’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর এ মিশুক প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সমীর কুমার দে।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার আরও বলেন, বিদ্যমান এমএফএস প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে ইন্টার অপারেবিলিটি পদ্ধতি চালুর মাধ্যমে এই পদ্ধতিটিকে আরও জনপ্রিয় করে তোলার উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।

এমএসএফের অব্যাহত অগ্রগতিকে ডিজিটাল ফিনান্সিয়াল সার্ভিসের একটি বিস্ময়কর অগ্রগতি হিসেবে উল্লেখ করে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, দেশের জন্য এটি একটি দৃষ্টান্ত। আর এই অবস্থান আগামী দিনের ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে। তিনি বলেন, এইখাতের অগ্রগতির জন্য আমরা কাজ করছি এবং যে কোন সহযোগিতা প্রদানে সরকার বদ্ধপরিকর। টেলিকম সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে বিভিন্ন যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। যার সুফল জনগণ করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যেও পাচ্ছেন।

Facebook Notice for EU! You need to login to view and post FB Comments!

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি