সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ১২:৩০ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
এবার ‘বাড়ীর কাজে’ শিক্ষার্থী মূল্যায়ন, বাতিল হচ্ছে পিইসি পরীক্ষা: বাতিল হতে পারে ইইসি, জেএসসি ও জেডিসিও ‘অন্যের চাকরির উৎস হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে’ ভূমিধস বিজয়ে ইরানের ১৩তম প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রায়িসি ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ’ হত্যা করে ৯৯৯ নম্বরে ফোন, ‘বাবা, মা, বোনকে খুন করেছি, আইস্যা নিয়া যান’ চুয়াডাঙ্গায় করোনায় আক্রান্ত আরও ৩ জনের মৃত্যু: নতুন সংক্রমণ ৬৮ চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকা ও আলুকদিয়া ইউনিয়ন লকডাউন ঘোষণা অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমকালে বাংলাদেশী ২৫ নাগরিক আটক সলঙ্গায় ২০০ মিটার নতুন পাকা রাস্তা পেয়ে আনন্দিত এলাকাবাসী নবীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগ সভাপতি মুকুলের পরিবারের আর্ত্মনাদ

মেহেরপুরে বিক্রয়কর্মীর লাশ উদ্ধার

মেহেরপুর পৌর শহরের পৌর ঈদগাহ পাড়ায় গন্ধরাজ নারকেল তেল কোম্পানীর কবির হোসেন নামের এক বিক্রয়কর্মীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ১০ জুন বৃহস্পতিবার সকালে ঈদগাহ পাড়ার রিপন হোসেন নামের এক ব্যক্তির বাড়ীর তিনতলার একটি কক্ষ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। কবির হোসেন মাগুরা জেলার বাসীন্দা। কবির হোসেন ওই বাড়ীতে ভাড়া থাকতেন।
জানা গেছে, গত ৩ জুন তিনি ওই বাসায় ভাড়া ওঠেন।
এ বিষয়ে বাড়ির মালিক রিপন বলেন, কবির হোসেন গত ৩ জুন এসেছে আমার বাসায়। আলেয়া ষ্টোরের মালিকের ছেলে মহব্বত ভাই নিজে এসে তাকে আমার বাসায় তুলে দিয়ে যায়। আমি তার পরিচয় জানলাম বলল মাগুরায় বাসা। আমি বললাম ভাড়া তো এডভান্স দিয়া লাগবে। তখন কবির বললেন- ১০ তারিখে বেতন পাবে তারপরে আপনার টাকা দিব। খাওয়ার টাকাও দেয় নাই। আমি জিজ্ঞাসা করলাম আপনি কোন কোম্পানীর তিনি বললেন- লালবাগ কেমিক্যাল গন্ধরাজ তেলের অর্ডার কাটি। প্রতিদিনের মত সে ০৯জুন বুধবার রাতের খাওয়া দাওয়া করে ঘুমাইছে, আমার একসাথে রুমে বসে গল্পগুজব করলাম, আম খেয়েছি। সে আমাকে বলল ভাই আমি ঘুমাইতে গেলাম। সকালে সবাই নিজ নিজ মার্কেটে চলে যায়। আমার এখানে বিভিন্ন কোম্পানীর ১৮ জন লোক থাকে। সবাই মার্কেটে চলে গেছে। কাজের মেয়ে প্রতিদিনের মত বেলা ১১ টায় রান্না করতে আসে। রান্না করতে এসে বলছি কি ব্যাপার একজনের খাবার পরে আছে কেন? উনি বলছে কে খাই নি কে খাই নি। লোক খুঁজতে খুঁজতে দেখে কবিরের রুম খোলা। লোকটিকে দেখার পর বলছে বাপ উঠে খেয়ে নাও খেয়ে নাও। তিনি ওঠেনা আরেকজন আবার গ্যাস দিতে এসেছিল। খালা ওনাকে বলছে বাপ ওই লোকতো উঠছে না দেখতো, উনিও ডেকেছে। পরে, হাতের পালস চেক করে দেখছে হাতে পালস নেই। পরে, আমাকে ফোন দিয়ে বলে ভাই দ্রুত বাসায় আসেন। আমি এসে দেখছি এই অবস্থা। তখন আমি প্যানেল মেয়র ও তার ডিলার পয়েন্ট মহব্বত ভাইকে ফোন দিলাম। তিনি আসলেন পাড়া-মহল্লার লোকও এসে দেখছে এই অবস্থা ষ্ট্রোক করে মারা গেছে। তার পাশে মোবাইলটা পড়েছিল। মোবাইলে দুলাভাই নামে একটা নাম্বার সেভ করা ছিল। আমি সেই নাম্বারে যোগাযোগ করে তাদের খবর দিলাম। তো উনারা উনাদের মত পদক্ষেপ নিয়ে আসছে। উনার বোন বোনাই ও ভাগ্নি রওনা দিয়েছে এখন যখন পৌঁছাই নি। পুলিশকে জানানো হয়েছে।
এ বিষয়ে মেহেরপুর সদর থানার ওসি শাহ দারা জানান, প্রাথমিকভাবে তার মৃত্যুর কোন ক্লু পাওয়া যায় নি। তার পরিবারের লোকজন এষনও পৌঁছায় নি। তবে, পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

আমাদের চুয়াডাঙ্গা/এ.এইচ

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT