সোমবার, ২১ Jun ২০২১, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
এবার ‘বাড়ীর কাজে’ শিক্ষার্থী মূল্যায়ন, বাতিল হচ্ছে পিইসি পরীক্ষা: বাতিল হতে পারে ইইসি, জেএসসি ও জেডিসিও ‘অন্যের চাকরির উৎস হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে’ ভূমিধস বিজয়ে ইরানের ১৩তম প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রায়িসি ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অপ্রতিরোধ্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ’ হত্যা করে ৯৯৯ নম্বরে ফোন, ‘বাবা, মা, বোনকে খুন করেছি, আইস্যা নিয়া যান’ চুয়াডাঙ্গায় করোনায় আক্রান্ত আরও ৩ জনের মৃত্যু: নতুন সংক্রমণ ৬৮ চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকা ও আলুকদিয়া ইউনিয়ন লকডাউন ঘোষণা অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমকালে বাংলাদেশী ২৫ নাগরিক আটক সলঙ্গায় ২০০ মিটার নতুন পাকা রাস্তা পেয়ে আনন্দিত এলাকাবাসী নবীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগ সভাপতি মুকুলের পরিবারের আর্ত্মনাদ

ঘুরে আসুন কুষ্টিয়ার কুঠিবাড়ি 

 কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার একটি গ্রাম শিলাইদহ। পদ্মার কোল ঘেঁষে গড়ে ওঠা গ্রামটির পূর্ব নাম কসবা। এই গ্রামেই বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত কুঠিবাড়ির অবস্থান। কবি তাঁর জীবনের উল্লেখযোগ্য সময় কাটিয়েছেন এখানে। ফলে, জীবন এবং সাহিত্যের এক বিরাট অংশের সাক্ষী এ কুঠিবাড়ি। বাড়িটি জেলা শহর থেকে প্রায় ১৪ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথের দাদা প্রিন্স দ্বারকানাথ ঠাকুর ১৮০৭ সালে এ অঞ্চলের জমিদারি পান। পরে ১৮৮৯ সালে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর জমিদার হয়ে আসেন এ অঞ্চলে।

তিনি ১৯০১ সাল পর্যন্ত জমিদারি পরিচালনা করেন। ওই সময়েই তিনি বিখ্যাত ‘গীতাঞ্জলী’ কাব্যগ্রন্থের বৃহৎ অংশ অনুবাদ করেন। এই কুঠিবাড়িতে বসে রচনা করেন অসংখ্য গান, গল্প, কবিতা, নাটক এবং উপন্যাস। কুঠিবাড়িটির ১৮টি কক্ষে ১৮টি দরজা এবং ৪৮টি জানালা রয়েছে। বাড়ির ভেতরে সাজানো আছে বিশ্বকবির ব্যবহৃত পালকি, নৌকা, টেবিল, খাট, কিছু দুর্লভ ছবিসহ সেই সময়ের ব্যবহৃত নানা জিনিসপত্র। সবুজের সমারোহে ঘেরা কুঠিবাড়ির পাশেই রয়েছে রবীন্দ্রনাথের নিজ হাতে লাগানো বকুল গাছ এবং পুকুরে পদ্মা বোটের আদলে তৈরি নৌকা।

এ ছাড়া ‘গীতাঞ্জলী’, ‘সোনার তরী’ এবং ‘খেয়া’ নামের তিনটি রেস্টহাউজ এবং একটি গ্রন্থাগার রয়েছে কুঠিবাড়িতে। সরকারের প্রত্মতত্ত্ব অধিদপ্তর বাড়িটির রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব নিয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটির জন্য রোববার সারাদিন এবং সোমবার অর্ধদিবস বন্ধ থাকে কুঠিবাড়ি। কুঠিবাড়ি থেকে তিন কিলোমিটার দূরে রয়েছে রবীন্দ্রনাথের কাচারিবাড়ি।

যেখানে থাকবেন : কুষ্টিয়া শহরে থাকার জন্য এনএস রোডের পাশে শাপলা, কোর্ট স্টেশনের পাশে আজমেরী এবং ডিসি কোর্ট এলাকায় দিশা, মজমপুরে অবস্থিত জাহাঙ্গীর হোটেল উন্নতমানের হোটেল। হোটেলগুলো এসি ও ননএসি দুই ধরনেরই সুবিধা দিয়ে থাকে।

বিশেষ খাবার : কুষ্টিয়ার তিলের খাজা, দধি এবং কাটারিভোগ মিষ্টি অনেক সুস্বাদু। কুষ্টিয়া শহরের মজমপুরে বীরেন, যুগোল দধি, মিষ্টান্ন ভাণ্ডার দধি এবং মিষ্টির জন্য বিখ্যাত।

যেভাবে যাবেন কুঠিবাড়ি : ঢাকা থেকে এস বি, শ্যামলী, হানিফসহ বিভিন্ন পরিবহন কুষ্টিয়ায় নিয়মিত যাতায়াত করে। এসি বাসে ৬০০ থেকে ১০০০ টাকা (ক্লাস অনুযায়ী) এবং নন-এসিতে ৪৫০ টাকা ভাড়া। বাস শহরের মজমপুর গেট এলাকায় নামিয়ে দেয়। মজমপুর থেকে কুঠিবাড়ি আটোরিকশায় ৪০ টাকা ভাড়া। কুঠিবাড়ি থেকে পাঁচ টাকা ভাড়ায় কাচারিবাড়ি ঘুরে আসা যায়।

 

সুমাইয়া আক্তার শিখা/এ.এইচ

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT