সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৪৮ অপরাহ্ন

শিরোনাম

মেহেরপুরের গাংনীতে স্বামী হত্যার মামলার প্রধান আসামী স্ত্রী রোজিনা আটক

বিশেষ প্রতিনিধি, মেহেরপুর:

মেহেরপুরের গাংনীতে সাইফুল ইসলাম (৪৮) নামের এক স্বামী হত্যার ঘটনায় প্রধান আসামী তার স্ত্রী রোজিনা খাতুনকে (৪৪) আটক করেছে পুলিশ। নিহত সাইফুল ইসলাম গাংনী উপজেলার বামন্দী শহর সংলগ্ন নিশিপুর গ্রামের ভাদু শেখের ছেলে।

বুধবার (১০ মার্চ) দিবাগত রাতে গাংনী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলী রেজার নেতৃত্বে পুলিশের একটিদল গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে রােজিনাকে আটক করে ।

গাংনী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আলী রেজা জানান, স্বামী সাইফুল ইসলামকে পারিবারিক কলহের জেরে গত সোমবার (৮ মার্চ) দিবাগত রাতে তার স্ত্রী রোজিনা খাতুন ও রােজিনার বাবা আতাহার আলী এবং রোজিনার মা মিলে বাড়ির উঠানের একটি নারিকেল গাছের সঙ্গে বেঁধে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করেন। মৃত্যু নিশ্চিত করতে তার মুখে আগাছানাশক বিষ ঢেলে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশের একটিদল তাকে উদ্ধার করে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।

রোজিনার চাচী জানান, রোজিনা শ্বশুর বাড়িতে থাকা অবস্থায় পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন। বিষয়টি জানাজানি হলে রোজিনা তার বাবার বাড়ি উপজেলার দেবীপুর চলে আসে। তাদের সংসারে ২টি সন্তান আছে। তাদের কথা চিন্তা করে সাইফুল গত ছয় মাস আগে শ্বশুর বাড়ি দেবীপুরে চলে আসেন। সেখানে তিনি ফেরি করে বিভিন্ন মালামাল বিক্রি করে সংসার চালাতেন।

স্থানীয়রা জানান, গত কয়েক দিন আগে সাইফুল তার বাবার বাড়িতে যান। এ সুযোগে রোজিনা তার বোনের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে পাঁচ দিন নিখোঁজ ছিলেন। সাইফুল শ্বশুর বাড়িতে এসে রোজিনাকে না পেয়ে রোজিনার বোনের বাড়িতে খোঁজ নেন। পরে রোজিনা হঠাৎ ফিরে এলে তাদের মধ্যে বাকবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে রোজিনা ও তার বাবা আতাহার এবং মা-সহ তিন জনে মিলে সাইফুলকে প্রথমে ইট দিয়ে মাথায় আঘাত করেন। এতে তিনি অচেতন হয়ে পড়লে, তার হাত ও পা বেঁধে উঠানের নারিকেল গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতন করা হয়। এক পর্যায়ে সাইফুলের মুখে বিষ দেয় তারা।
স্থানীয়রা সাইফুলকে নির্যাতন করতে নিষেধ করলে, প্রতিবেশীদের গালিগালাজ করে তাড়িয়ে দেন তারা। এক পর্যায়ে সাইফুল মারা গেলেও তাদের কিছুই হবে না। তাদের কেউ কিছু করতেও পারবে না বলে বীর দর্পে হংকর দেন। রোজিনাকে ক্ষুর দিয়ে সাইফুল আঘাত করেছেন বলেও নাটক সাজায় তারা।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বজলুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় হাসপাতাল থেকে আটক করে রোজিনাকে থানায় নেওয়া হয়েছে। নিহতের বড় ভাই বাদি হয়ে রােজিনাকে প্রধান আসামি করে আজ বৃহস্পতিবার থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। মামলানং-১১,তারিখ-১১/০৩/২০২১ ইং। এ ঘটনায় আরাে বেশ কয়েকজনের নামে মামলা করেছেন। আটকের স্বার্থে সকল আসামীর নাম প্রকাশ করা সম্ভব।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি