মঙ্গলবার, ২৭ Jul ২০২১, ১২:১৬ অপরাহ্ন

দর্শনা কেরুজ চিনিকলে চলছে ভোটের সমীকরণঃ শেষ মুহুর্তে কি থাকছে নতুন কোন চমক?

দর্শনা (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধ:

আজ রোবার পার হলেই আমাীকাল সোমবার দর্শনা কেরুজ শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়ন নির্বাচনের দ্বি-বার্ষিক সাধারন নির্বাচন। এবারের নির্বাচনে প্রচার-প্রচারণায় নেই আলোক সজ্জার ঝলকানি, নেই ব্যানার-ফিষ্টনের ছড়াছড়ি। তবে এবারের নির্বাচনে প্রচার-প্রচারনায় কিছুটা ব্যতিক্রম হলেও প্রার্থীরা সাধারণ ভোটারদের মনজয়ে যা করার প্রয়োজন সবই ঠিকই করছেন। এখন নির্বাচনের একেবারেই শেষ প্রান্তে। আর শেষ মুহুর্তে এসে ভোটারদের নিজ কব্জায় নিতে রাতের ঘুম হারাম করে প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে, দ্বারে ছুটছেন।

তবে নির্বচনে ভােটের সমীকরণে অনেকটায় পরিস্কার সাধারণ সম্পাদক পদে বিজয়ের একেবারে দ্বার প্রান্তে রয়েছে মাসুদুর রহমান মাসুদ। কিন্তু সাধারণ সম্পাদকের বিষয়টি অনেকটা পরিস্কার হওয়া গেলেও সভাপতি নিয়ে রয়েগেছে ধোয়াশার মধ্যে। সে সমীকরণ হিসাবে এবারের নির্বাচনে ৮ম বারের মত সাধারণ সম্পাদক পদে মসনদে বসতে যাচ্ছেন মাসুদুর রহমান মাসুদ এমনটায় ধরে নিয়েছে সাধারন ভোটারেরা। তবে সচেতন মহলের প্রশ্ন সভাপতি হিসাবে কাকে পাচ্ছেন তিনি তৈয়ব আলী নাকি নতুন মুখ ফিরােজ আহম্মেদ সবুজকে? তবে মাসুদকে কাছে পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে সভাপতি প্রার্থীরা।সর্বাত্বক চেষ্টা চালিয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত কােন প্রার্থীই মনগলাতে পারেনি তার। বিগত নির্বাচনের বিষয়টি আগেভাগেই পরিস্কার হলেও এবারের নির্বাচনে এখনো পর্যন্ত জোটবদ্ধ না হওয়ায় আধাঁরেই থাকছে বিষয়টি।

অপর দিকে সম্পূর্ণ ভিন্নরুপে কচ্ছপ গতিতে পা ফেলছেন অপর সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী মনিরুল ইসলাম প্রিন্স। তার হিসাব নিকাশ কেউ মেলাতে পারছেন না। কেরুজ ক্যাম্পস এলাকা ঘুরে জানাগেছে, দর্শনা কেরুজ নির্বাচন মানে একটি বাড়তি ইমেজ। প্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ, প্রচার-প্রচারণা নির্বাচনের ইমেজ বাড়িয়ে তােলে কয়েকগুণ। সাধারণ সভার পর থেকে কােমর বেঁধে মাঠে নামে প্রার্থীরা। ৭টি ওয়ার্ডে মােট ভােটার সংখ্যা ১হাজার ৮৮জন হলেও প্রত্যক সংগঠনের চিৎকার ও কর্মীসভায় উপস্থিতির সংখ্যা দেখে বােঝায় মুশকিল প্রকৃত ভােটারের সংখ্যা কত। নিজের অবস্থান জানান দিতে এবং কর্মীদের মনবল বৃদ্ধি করতেই এ কৌশল অবলম্বন করে থাকেন শ্রমিক নেতারা।
এ নির্বচনের একেবারেই শেষ প্রান্তে। এখন শুধু অপেক্ষার পালা। নির্বাচনের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত প্রার্থীরা ভোটারদের দ্বারে, দ্বারে ছুটবেন এবং তাদের মনজয় করতে যা,যা প্রয়োজন সাধ্যমত করবেন প্রার্থীরা। তবে নির্বাচনের আগ মুহুর্তে শেষ প্রচারনায় শুক্রবারের আখরী র‌্যালীতে

ভােটারের উপস্থিতি পর্যালোচানা করে নির্বাচন বিশ্লষকেরা বলেন, এবারের নির্বাচনে কেরুজ চিনিকলের শ্রমিক ও কর্মচারী ইউনিয়ন নির্বাচনে মাসুদুর রহমান মাসুদ সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন এটা অনেকটায় পরিস্কার। কারণ হিসাবে মোট ভোটারের মধ্যে কর্মী এবং ভােটার সংখ্যা সবার চাইতে বেশী হওয়ায় তার সংগঠণ সবচাইতে শক্তিশালী। আর এজন্য আসন্ন নির্বাচনে যিনিই সভাপতি হবেন তার ইশারা লাগবে। এর কারণ হিসাবে একক ভাবে সভাপতি হওয়ার মত ভােট ব্যাংক কােন সংগঠণের নেই। গতবারের নির্বাচন প্যানেলের যে ঘটনা ঘটেছে এবার সেটা না হওয়ার সম্ভবনাই বেশী। তবে শেষ বলে কিছুই নেই। নির্বাচনের আগ মুহুর্তে কি থাকছে কোন চমক?

এ জন্য নির্বাচনের ভোটের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। একটি সুত্র পরিসংখ্যাণ দিয়েছে এখন পর্যন্ত রিজার্ভ ভােটের হিসাব নিকাশে মাসুদ সংগঠণ এগিয়ে রয়েছে ভোটের দিক থেকে। অন্যদিকে তৈয়ব আলী সংগঠণ, ফিরােজ আহম্মদ সবুজ সংগঠণ, সাধারন সম্পাদক প্রার্থী মনিরুল ইসলাম প্রিন্স সংগঠণ রয়েছে অনেক পিছিয়ে। এবারের নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ১হাজার ৫৬জন। এই মোট ভোটের ভাগিদার সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক প্রার্থী উভই। সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দি প্রার্থী রয়েছেন দু’জন।

তবে এই ভোটের মধ্যে সভাপতি পদে যিনি বেশী ভোট পাবেন তিনিই নির্বাচিত হবেন। ঠিক তেমনি সাধারণ সম্পাদক পদেও। এখানেও কোন ব্যতিক্রম ঘটবেনা। সাধারণ সম্পাদক পদেও প্রতিদ্বন্দিতায় রয়েছে দু’জন প্রার্থী। আর প্রার্থীর সংখ্যা কম হওয়ায় সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হতে হলে প্রায় সাড়ে ৫শ ভােট পেতে হবে। এবারের নির্বাচন ব্যাজ ধারণ করা আর ভোট পাওয়ার মিল থাকবেনা। বুকে ব্যাজ ধারণ করা থাকলেও গােপন ব্যালাটে ভােট দেওয়ার সময় মনে,মনে পছন্দের প্রার্থীকেই বেঁছে নেবেন। তাই সকলকে নির্বাচনের পরবর্তী ভােট গণনা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। সাধারণ সম্পাদক মাসুদ সভাপতি হিসাবে পাশে রাখছেন কাকে।

 

এ.এইচ

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT