রবিবার, ০৭ মার্চ ২০২১, ১১:১৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম
আজ ঐতিহাসিক ৭ মার্চ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশের অগ্রযাত্রায় ভূমিকা রাখুন: প্রধানমন্ত্রী যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য শিক্ষা চালু হবে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে: দীপু মনি ঐতিহাসিক ৭ মার্চ উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর বাণী বিশ্ববাজারে কমেছে স্বর্ণের দাম সাংবাদিকতার অনুশীলন আরও ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে: সম্পাদক পরিষদ চুয়াডাঙ্গার গোরস্থান পাড়ায় স্বামীর নির্যাতনে স্ত্রী বাড়ী ছাড়া: পুলিশের উদ্যোগে সংসারে ফিরলো শান্তি স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকলকে মেলায় আসতে হবে:ডিসি নজরুল ইসলাম সরকার আলমডাঙ্গার আসমানখালীতে পূর্ব শত্রুতার জেরে নারীসহ একই পরিবারের ৩ জনকে পিটিয়ে জখম দামুড়হুদার জয়রামপুরে  ১০ কাঠা জমির পানের বরজ পুড়ে ছেই : ক্ষয়ক্ষতি প্রায় ২ লক্ষ টাকার

আত্রাইয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ফুলবাড়ি বাঁধ সংস্কারে ৭ বছরেও নজর পড়ে নি কর্তৃপক্ষের

রুহুল আ‌মিন,  আত্রাই (নওগাঁ) থেকেঃ

নওগাঁর আত্রাইয়ে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত বেড়িবাঁধ সংস্কারে কতৃপক্ষের নজর নেই। আত্রাই উপজেলার ছোট যমুনা নদীর ফুলবাড়ি বেড়ি বাঁধটি বর্ষা মৌসুমে ভাঙ্গনে এটি বছরের পর বছর পার হলেো কোন সংস্কার না করায় উপজেলার মির্জাপুর স্লুইসগেট হইতে  মিরাপুর হয়ে কৃষ্ণপুর, নান্দাই বাড়ি, ঘোষগ্রাম এলাকার প্রায় ৭কিলোমিটার বেড়ি বাঁধটি অভিভাবকহীন হওয়ার কারণে চরম ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পরেছে। শুকনো মৌসুমে বেড়ি বাঁধটির সংস্কার কাজ না করায় এলাকার কয়েক হাজার মানুষ বর্ষা মৌসুমের আগেই আতংকে বসবাস করছেন।

জানা গেছে, ফুলবাড়ি এ বেড়ি বাঁধটি  গত ২০১৪ সালে ভেঙ্গে বন্যার পানিতে প্লাবিত হয় মিরাপুর উদনপৈ সহ আত্রাই উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম। ২০১৭ সালে রানীনগরের নান্দাই বাড়ি বেড়ি বাধ ভেঙ্গে এ দুই উপজেলার শতাধিক গ্রামসহ ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এরপর ২০১৯ সালে আবার তা ভেঙ্গে যায় নান্দাই বাড়ি বাধ। ভাঙ্গনের সময় পানি উন্নয় বোর্ডসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাদের আশ্বাস প্রদান ও আনাগোনা দেখা গেলেও বাঁশের খুঁটি আর বালুর বস্তা দিয়ে দায়সারা চেষ্টা করা হয়। গত প্রায় ৪০ বছর ধরে মির্জাপুর স্লুইসগেট হতে ফুলবাড়ি,উদনপৈ, মিরাপুর, কৃষ্ণপুর ও নান্দাই বাড়ি এ বেড়ি বাধটি স্থায়ীত্বশীল বাঁধের ব্যবস্থা না হওয়ায় এই বেড়ি বাঁধটি এখন স্থানীয় মানুষদের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছে। নদীর পানি সামান্য বৃদ্ধিতে এ সকল এলাকাবাসির চোখের ঘুম হারিয়ে যায়। নদীর পানি কৃষির কাজে সুষ্ঠুভাবে ব্যবহারের জন্য আঁশির দশকে আত্রাই উপজেলার সাহাগোলা ইউনিয়নের ফুলবাড়ি উদনপৈ মিরাপুর ও রানীনগর উপজেলার গোনা ইউনিয়নের ঘোষগ্রাম, নান্দাইবাড়ী, কৃষ্ণপুর  এলাকায় স্থানীয় সরকারের সহযোগীতায় বেড়িবাঁধ নির্মাণ করা হয়। এরপর থেকে সরকারের কোন দপ্তর বেড়ি বাঁধের সংস্কার না করায় শুধুমাত্র বালুর বস্তা আর বাঁশের খুঁটিই যেন শেষ ভরসা হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে এই বাঁধের অবস্থা খুবই বিপদজনক।

সাহাগোলা ইউ,পি চেয়ারম্যান মোঃ শফিকুল ইসলাম বাবু বলেন বাঁধটির সংস্কার কাজের জন্য বছরের পর বছর পানি উন্নয়ন বোর্ডসহ উর্দ্ধতন কর্তাব্যক্তিদের দুয়ারে দুয়ারে ধর্না দিয়েও কোন লাভ হয়নি। শুধুমাত্র ভেঙ্গে যাওয়ার সময় বাঁধটি পরিদর্শনে এসে কর্তা ব্যক্তিরা বড় বড় আশ্বাস দিয়ে যান আর নদীর পানি কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেই আশ্বাসগুলো বস্তাবন্দি হয়ে যায়। তবুও সরকারের এ দপ্তরে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি বর্ষা মৌসুমে বড় ধরনের ক্ষতি হওয়ার আগেই শুকনো মৌসুমেই বাঁধের এই অংশে ফুলবাড়ি ভাঙ্গন-সহ বাঁধগুলো সংস্কার করার জন্য অর্থ বরাদ্দ দেওয়ার সুপারিশ করছি।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ কে এম কাউছার জানান, ফুলবাড়ি ভাঙ্গন-সহ এই বাঁধটি এলাকাবাসির জন্য একটি অভিশাপ। জরুরী ভাবে এই বাঁধটি মেরামত করা না হলে প্রতিবছরই বর্ষা মৌসুমে নদীর পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে ফসলি জমিতে পানি প্রবেশ করে আত্রাই রানীনগরের হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তাই এই বাঁধ গুলোর দিকে সরকারের নজর দেওয়া প্রয়োজন।

নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী জানান,এক সময় এগুলো রাস্তা ছিলো। কিন্তু নদী ভেঙ্গে যাওয়ার কারণে এখন তা বাঁধে পরিণত হয়েছে। আত্রাই উপজেলার ফুলবাড়ি বেড়ি বাঁধের ভাঙ্গনসহ বাঁধ এবং রানীনগর উপজেলার ঝুঁকিপূর্ণ বেড়ি বাঁধটি সংস্কারের বরাদ্দ চেয়ে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ বরাবর আবেদন করেছি। অর্থ বরাদ্দ পেলেই কাজ শুরু করা হবে।

নওগাঁ-৬ (আত্রাই-রাণীনগর) আসনের সংসদ সদস্য মো: আনোয়ার হোসেন হেলাল বলেন ছোটখাটো বরাদ্দ দিয়ে এই ভাঙ্গন ও বাঁধটির সংস্কার করা সম্ভব নয়। আমি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে ফুলবাড়ির এই ভাঙ্গন বাঁধটির প্রতি সুদৃষ্টি দেওয়ার অনুরোধ জানাচ্ছি।  তিনি আরো বলেন বাঁধটির অবস্থা এতটাই ঝুঁকিপূর্ন যদি এই শুষ্ক মৌসুমে বাঁধটি সংস্কার করা না হয় তাহলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে ভেঙ্গে আত্রাই ও রানীনগর দুই উপজেলার শতাধিক গ্রাম প্লাবিত ও হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT