রবিবার, ০৯ মে ২০২১, ১২:১৮ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মনে প্রাণে ধারণ করি- জুয়েল চেয়ারম্যান কুষ্টিয়ায় সেফটি ট্যাংকের ভিতরে ২ নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ইফতার বিতরণ মেহেরপুরের আমঝুপি গ্রামে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু চুয়াডাঙ্গায় গাঁজাসহ আটক ৩, ভ্রাম্যমাণ আদালতে জেল-জরিমানা ঝিনাইদহে ভারত ফেরত ১৪৭ বাংলাদেশী হোম কোয়ারেন্টাইনে কর্মহীন পরিবারের বাড়ীতে বাড়ীতে ইফতার সামগ্রী পৌঁছে দিলেন একদল যুবক চুয়াডাঙ্গার দর্শনা পৌরসভায় ভিজিএফ কার্ডধারীদের নগত অর্থ বিতরণ চুয়াডাঙ্গায় পূর্ব বিরোধের জেরে আ’লীগ কর্মী নজরুলকে কুপিয়ে জখম, আটক-১ ঝিনাইদহে বাম জোটের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ১১ঃ আহত কমপক্ষে-৫০

ষ্টাফ রিপোর্টার ও  কালিগঞ্জ থেকে টিপু সুলতান:

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে বাসের সঙ্গে ট্রাকের সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১১-তে দাঁড়িয়েছিলো এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত। সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে ধারণা করা হয়। এর মধ্যে সাতজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। নিহতের মধ্যে শিশু একজন, ৩ নারী ও ৭ পুরুষ রয়েছেন।
নিহতদের মধ্যে অনার্স শেষ বর্ষের পরীক্ষা দিয়ে বাড়ী ফিরছিলেন রেশমা নামে শিক্ষার্থী। রেশমা চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার ডিঙ্গেদহ গ্রামের আব্দুর রশিদের মেয়ে রেশমা (২৬) ও মোস্তাফিজুর রহমান কল্লোল (২৫) নামের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের একজন সিপাই রয়েছেন। তিনি কালীগঞ্জ উপজেলার ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নের সুন্দরপুর গ্রামের ইছাহাক মণ্ডলের ছেলে। তিনি যশোর থেকে পরীক্ষা দিয়ে বাড়ী ফিরছিলেন।
নিহত অন্যরা হলেন- আলমডাঙ্গা উপজেলার নাগদাহ গ্রামের জান্নাতুল বিশ্বাসের ছেলে ওয়ালিউল আলম শুভ (২৫), কালীগঞ্জ উপজেলার ভাটপাড়া গ্রামের রণজিত দাসের ছেলে সনাতন দাশ (২৫), শৈলকুপা উপজেলার বগুড়া গ্রামের মৃত মহরম বিশ্বাসের ছেলে আব্দুল আজিজ (৭৫), ঝিনাইদহ সদর উপজেলার নাথকুন্ডুু গ্রামের আব্দুল ওয়াহেদের ছেলে ইউনুস আলী (৩২), কোটচাঁদপুর উপজেলার হরিন্দিয়া গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে হারুনর রশিদ সোহাগ (২৪) এবং গাড়িচালক উজ্জ্বল হোসেন। তার বাড়ি মাগুরায় বলে জানা গেছে।
এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাকী চারজনের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।
নিহত রেশমার ভাই সোহেল রানা জানান, তার বোন অনার্স শেষ বর্ষের পরীক্ষা দিয়ে ফিরছিলেন। হঠাৎ ফোন আসে যে বোন সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন। ঘটনাস্থলে এসে বোনের লাশ শনাক্ত করেন তিনি। তিনি বলেন, শেষ পরীক্ষা দিয়ে আর বাড়ী ফিরতে পারল না আমার বোন। শেষ পরীক্ষা দিয়ে চিরদিনের জন্য বিদায় নিয়েছে।
এদিকে, মেয়ের এমন করুণ মৃত্যুর খবর নিতে পারেন নি রেশমার বাবা। খবর শুনেই হার্ট অ্যাটাক হয়েছে তার। গুরুতর অবস্থায় তিনি এখন চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি। রেশমার বাবা আব্দুর রশীদকে হাসপাতালে ভর্তির খবর নিশ্চিত করেছেন রেশমার ফুফাতো ভাই নজরুল ইসলাম। কলেজের পরিচয়পত্র দেখে রেশমার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর জানা যায়, মাস্টার্স পরীক্ষা দিয়ে তিনি বাসে করে বাড়ী ফিরছিলেন।
ঝিনাইদহ-৪ আসনের এমপি আনোয়ারুল আজিম আনার মোস্তাফিজুর রহমান কল্লোলের লাশ বাড়ী পৌঁছানোর ব্যবস্থা করেন। ওই সময় নিহতের পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান তিনি।
বুধবার ১০ ফেব্রুয়ারী বিকেল ৩টার দিকে যশোর-ঝিনাইদহ সড়কের বারোবাজার এলাকায় আমজাদ আলী ফিলিং স্টেশনের পাশে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। এতে আহত হন কমপক্ষে ৫০ জন। দুর্ঘটনায় আহতদের যশোর ও ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এছাড়া সবার মরদেহ কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এনে রাখা হয়েছে। যাদের পরিচয় পাওয়া গেছে তাদের স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে।
প্রত্যক্ষদর্শী মিন্টু নামের এক কৃষক জানান, বিকেল ৩টার দিকে জে কে পরিবহনের একটি বাস যাত্রী নিয়ে যশোর থেকে ঝিনাইদহের দিকে যাচ্ছিল। বাসটি বারোবাজার পার হয়ে আমজাদ আলী ফিলিং স্টেশনের সামনে পৌঁছলে রাস্তার ওপর থাকা যাত্রীকে বাঁচাতে গিয়ে ব্রেক করে। এতে যাত্রীবাহী বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার ওপর আড়াআড়ি হয়ে উল্টে পড়ে। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা একটি ট্রাক বাসের মাঝ বরাবর সজোরে ধাক্কা দেয়। ট্রাকের ধাক্কায় বাসটি দুমড়ে-মুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই ৯ জন মারা যান। বাকিরা হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান।
দুর্ঘটনার খবর পেয়ে কালীগঞ্জ, ঝিনাইদহ ও যশোর ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা এসে লাশ উদ্ধার করে ও রাস্তায় উল্টে যাওয়া বাসটিকে সরিয়ে ফেলে।
ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, বাসটির সামনের এবং মাঝামাঝি অংশ দুমড়ে মুচড়ে গেছে। এটি ছিটকে রাস্তার একপাশে পড়ে আছে। আশেপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ভিড় করছেন।
এদিকে, দুর্ঘটনার পর মহাসড়কে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। কালীগঞ্জ থানা পুলিশ ও হাইওয়ে পুলিশের চেষ্টায় কয়েক ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়।
কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের ষ্টেশন অফিসার শেখ মামুনুর রশিদ জানান, বুধবার বিকাল ৩টার দিকে ঝিনাইদহগামী জেকে পরিবহন বাসটি ওভারটেক করতে গিয়ে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার উপর উল্টে যায়। এ সময় বিপরীত দিক থেকে আসা যশোরগামী একটি ট্রাক বাসটিকে সজোরে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে যায়।
এতে সড়কের দুইপাশে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এ সময় বাসের মধ্যে থেকে ৯ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এরপর বারোবাজার গরীবশাহ ক্লিনিকে আরো এক নারীর মৃত্যু হয়। আহত ৫০ জনকে উদ্ধার করে বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এর মধ্যে ৪-৫ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।
বারোবাজার হাইওয়ে থানার ওসি শেখ মেজবাহ উদ্দীন জানান, দুপুর তিনটার দিকে খুলনা থেকে কুষ্টিয়াগামী গড়াই পরিবহনের একটি বাস ওভারটেক করতে গিয়ে বারোবাজার আমজাদ আলী তেল পাম্পের কাছে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে মহাসড়কের ওপর উল্টে যায়। এ সময় কুষ্টিয়া থেকে যশোরের দিকে যাওয়া একটি দ্রুতগামী ট্রাক গতি নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে বাসটিকে আঘাত করে। এতে ঘটনাস্থলেই বাসের ৯ যাত্রী নিহত হন।
এদিকে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঝিনাইদহ-৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য ও কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল আজীম আনার, কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুবর্না রানী সাহাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও প্রশাসনের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT