বুধবার, ১৬ Jun ২০২১, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
সাংবাদিক জনির মুক্তির দাবিতে মেহেরপুরে মানববন্ধন আজ প্রিয় ঋতু বর্ষার প্রথম দিন চুয়াডাঙ্গায় স্বাস্থ্য সচেতনতার বিভিন্ন প্রচারণামূলক কার্যক্রম অনুষ্ঠিত মেহেরপুরে কোলড্রিংস ভেবে বিষপানে শিশুর মৃত্যু মেহেরপুরের ৩টি গ্রাম লকডাউন ঘোষণা, রাজশাহীগামী বিআরটিসি বাস বন্ধ চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদায় ১৪দিনের সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা চুয়াডাঙ্গায় নতুন করে ৫০ জনের করোনা শনাক্ত চুয়াডাঙ্গায় ভূমি সেবা সপ্তাহ উপলক্ষে আলোচনা সভা ও উদ্বোধনী অনুষ্ঠিত ঝিনাইদহের শৈলকুপায় প্রতিবন্ধী সন্তান নিয়ে বিপাকে প্রতিবন্ধী পিতা, চান আর্থিক সহায়তা কালীগঞ্জের শাহীন হত্যার প্রধান আসামী গ্রেফতার

উচ্চ রক্তচাপের কারণ ও শারীরিক জটিলতা

॥পুষ্টিবিদ উম্মে আতিকা মল্লিক আঁখি॥

১.বর্তমানে সব বয়সের মানুষের উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন-এ ভুগছেন। উচ্চ রক্তচাপকে বলা হয় ‘নীরব ঘাতক’। কেননা অনেকের ক্ষেত্রে এই রোগ খুব সহজে ধরা যায় না। আবার ধার পড়ার পর এর সঠিক চিকিৎসা না হলে বা প্রেশার নিয়ন্ত্রনে না থাকলে অনেক রোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। মূলত রক্তচাপ সিস্টোলিক চাপ ১২০ এবং ডায়াস্টোলিক চাপ ৮০ এর উর্ধ্বে হলে তখন উচ্চ রক্তচাপ ধরা হয়।
উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রেনের সবচেয়ে ভাল উপায় হলো জীবন যাত্রা বা লাইফ স্টাইল পরিবর্তন করা। নিয়মিত চিকিৎসা নয়। ওষধ সেবনের পাশাপাশি ডায়েটের গুরুত্ব অনেক বেশী। সঠিক ডায়েট শুধু মাত্র রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রন রাখে না বরং রক্তচাপের মাধ্যমে তৈরী সমস্যাগুলো প্রতিরোধে সাহায্য করে। উচ্চ রক্তচাপের নির্দিষ্ট কোন লক্ষণ ও উপসর্গ নেই। তবে কোন কোন ক্ষেত্রে- মাথা ব্যথা, অতিরিক্ত ঘুমের প্রবণতা, দ্বিধা গ্রস্থতা, দৃষ্টি শক্তির সমস্যা, বমি বমি ভাব, এমন কি বমিও হতে পারে।
২.উচ্চ রক্তচাপের কারণসমূহ:
ক. অতিরিক্ত ওজন: অতিরিক্ত ওজন থাকলে দেহে চর্বির পরিমান বেড়ে যায়। রক্তনালীতে চর্বি জমা হয়ে রক্তনালিকে সংকুচিত করে। ফলে উচ্চ রক্তচাপ হওয়ার ঝুকি বাড়ে।
খ. অনিয়ন্ত্রিত খাদ্যাভ্যাস: সুস্থ থাকার জন্য একটি সঠিক খাদ্যাভ্যাস খুবই জরুরী। হার্টকে সুস্থ রাখতে ও রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন রাখতে হলে পরিকল্পিত ডায়েটের কোন বিকল্প নেই। অতিরিক্ত তেল, চর্বি, ভাজাপোড়া ত্যাগ করা উচিত।
গ. মানসিক চাপ: মানসিক চাপ উচ্চ রক্তচাপের ওপর বিশেষ প্রভাব ফেলে। মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা, বিষন্নতা স্নায়ুতন্ত্রকে উদ্দীপ্ত করে। অ্যাড্রিনালিন ও কার্টিসোল হরমোনের নি:সরণকে অনেক বাড়িয়ে দেয়। এতে রক্ত নালি সংকুচিত হয় এবং উচ্চ রক্তচাপ বেড়ে যায়।
ঘ. পর্যাপ্ত ঘুম ও বিশ্রামের অভাব: পর্যাপ্ত ঘুম ও বিশ্রামের অভাবে মানসিক চাপ ও অবসাদ বৃদ্ধি পায়। ফলে রক্ত চাপ বৃদ্ধি পেয়ে উচ্চ রক্তচাপের সৃষ্টি করে।
ঙ. ধুমপান ও মদ্য পান: গবেষণায় দেখা গেছে, ধুমপান ও মদ্যপান উচ্চ রক্তচাপের ঝুকি বাড়ায়।
৩.উচ্চ রক্তচাপের কারণে মারাত্মক শারীরিক জটিলতা:
ক. হৃৎপিন্ডের মাংসপেশি দূর্বল হয়ে পায়। ফলে হৃৎপিন্ডের স্বভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয় ও হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।
খ. উচ্চ রক্তচাপের কারণে কিডনি নষ্ট হয়ে যেতে পারে।
গ. উচ্চ রক্তচাপের কারণে মস্তিস্কে রক্তের চাপ বেড়ে যায়। ফলে স্ট্রোক হবার সম্ভাবনা থাকে।
ঘ. চোখের রেটিনাতে রক্ত ক্ষরণ হয়ে অন্ধ হতে পারে।
৪.রক্তচাপ বেড়ে গেলে করণীয়: হঠাৎ রক্তচাপ বেড়ে গেলে সেক্ষেত্রে মাথায় পানি দেয়া বা বরফ দেয়া হলে রোগী কিছুটা স্বস্থিবোধ করতে পারে। রোগীকে শুয়িয়ে দিতে হবে। রোগী যেন হাটাহাটি না করে। সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে হবে।
৫.পরামর্শ: প্রতিদিন বিকেলে ১০ থেকে ২০ মিনিট ধিরে ধিরে হাটবেন। খাদ্য তালিকা থেকে কাচা লবন বর্জন করুন। প্রতিদিন ২ লিটার পানি পান করুন। ধুপপান, জর্দা, তামাকপাতা, গুল পরিহার করুন। দু:শ্চিন্তা মুক্ত থাকুন। ডায়াবেটিস থাকলে নিয়ন্ত্রনে রাখুন ও কিডনির সমস্যা থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন। পুষ্টিবিদের পরামর্শ অনুযায়ী খাদ্যাভ্যাস করুন।

লেখক:
পুষ্টিবিদ ও হেলথ এডুকেটর
চুয়াডাঙ্গা ডায়াবেটিক সমিতি, চুয়াডাঙ্গা।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT