মঙ্গলবার, ২৭ Jul ২০২১, ০৫:৪৬ পূর্বাহ্ন

জীবননগরে নেশাগ্রস্থ স্বামীর বর্বর নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালের বেডে গৃহবধূ স্বপ্না ॥ মাদক সেবী স্বামী আটক

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি:

নেশার টাকা যোগাড় করতে শ^শুর বাড়ী থেকে দফায়-দফায় টাকা আনতে ব্যার্থ হয়ে সদ্য বিবাহিতা স্ত্রী স্বপ্না খাতুনকে (১৯) নির্মম নির্যাতন চালিয়েছে পাষণ্ড স্বামী মামুন। গত সোমবার রাত ৮টার দিকে নেশাগ্রস্থ অবস্থায় স্ত্রীর শরীরের লজ্জা স্থানে চাবী দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে নির্যাতন চালায়। রাতভর মুখবুজে যন্ত্রণা সহ্য করলেও সকালে মঙ্গলবার ভোরে স্বামী ও শ^শুরালয়ের সদস্যদের চাপের মুখে নিজের বাপের বাড়ী চলে যেতে বাধ্য হয় গৃহবধূ স্বপ্না। পরিবারের সদস্যরা তার অবস্থার অবনতি দেখলে অবশেষে ভর্তি করে জীবননগর হাসপাতালে। মাদকাসক্ত স¦ামীর বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করলে পুলিশ অভিযুক্ত স্বামীকে আটক করে।
এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, দর্শনা শান্তিপাড়ার রাশেদের সাথে বিয়ে হয় অভিযুক্ত মামুনের মা বউটি খাতুনের। তাদের দাম্পত্য জীবনে একটি পুত্র সন্তান ছিল (মামুন)। এরই মধ্যে বিউটি খাতুন স্বামী রাশেদেরই নুন্দাই দর্শনার জহুরুলকে বিয়ে করে একমাত্র ছেলে মামুনকে নিয়ে পাড়ি জমায় জীবননগর রাজনগর পাড়ায় বাপের বাড়ীতে। এখানে সৎ বাবা ও মায়ের সাথে বড় হয় মামুন। সে প্রায় নেশা গ্রস্থহয়ে স্ত্রীর সাথে খারাপ আচরণ করতো। সোমবার রাতে স্ত্রীকে মারপিট করে মঙ্গলবার ভোরে তাকে বাড়ীতে পাঠিয়ে দেয়। পরে মামুন ও তার মামাতো ভাই কবিরকে সাথে নিয়ে নতুনপাড়ায় স্ত্রী স্বপ্নার বাড়ীতে তাকে আনতে যায়। স্থানীয় ইউপি সদস্য, এলাকাবাসী ও স্বপ্নার পরিবারের সদস্যরা তাদেরকে এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের ডেকে এনে আপষ মিমাংসার ভিত্তিতে স্বপ্নাকে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে। কিন্তু মামুন তার মা বিউটি খাতুনকে ফোন করে জানায় শ^শুর বাড়ীর লোকজন তাকে আটকে রেখেছে একথা বলে থানায় একটি অভিযোগ দিতে। মামুনের কথা মতো তার পরিবারের সদস্যরা থানায় একটি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করে। পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌঁছে আটকের সত্যতা না পেয়ে চলে আসে। কিন্তু গৃহবধু স্বপ্নার পরিবার পুলিশের উপস্থিতি দেখে ভয় পেয়ে যায়। এসময় অসহায় ও নির্যাতিতা পরিবারের পাশে দাঁড়ায় স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন শিকড় সমাজকল্যান সংস্থার সদস্যরা। সংগঠনটির সদস্যরা নির্যাতিতা গৃহবধুকে উদ্ধার করে জীবননগর হাসপাতালে ভর্তি ও আইনী সহায়তার জন্য গৃহবধুূ স্বপ্নার পাশে দাঁড়ায়।
নির্যাতিতা গৃহবধূ স্বপ্না খাতুন অভিযোগ করে জানান, এক বছর আগে পারিবারিকভাবে দর্শনা শান্তিনগরপাড়ার রাশেদের ছেলে মামুনের (২৫) সাথে তার বিয়ে হয়। দাম্পত্য জীবন শুরুর পর সে জানতে পারে তার স্বামী মাদকাসক্ত ওজুয়াড়ী। নেশা এবং জুয়া খেলার টাকা জোগাড় করতে মাঝে মধ্যেই মামুন তাকে বাপের বাড়ী থেকে টাকা আনতে চাপ দিত। পিতার অভাবের সংসারে মাঝে মধ্যে টাকা চাইলেই তারা না দিতে পারলে মামুন নির্যাতনের মাত্রা বাড়ীয়ে দিত। এরই মধ্যে আমার (স্বপ্নার) পিতা সিহাব হোসেন মামুনের আয় রোজগার বাড়াতে ব্যাটারী চালিত পাখি ভ্যান কিনে দেয়। সোমবার রাতে নেশা গ্রস্থ অবস্থায় টাকা আনতে বললে আমি না করায় সে আমার শরীরের গোপন স্থান গুলোতে চাবি দিয়ে নির্যাতন করে।
জীবননগর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাঃ হেলেনা আক্তার নিপা জানান, স্বপ্নার শরীরে গোপন স্থান ও বুকে আঘাত ও আচড়ের দাগ রয়েছে। তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।
জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম জানান, নিযার্তনের শিকার গৃহবধু হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে। তার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিতে স্বামী মামুনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনার ব্যাপারে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT