সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় কৃষকের লাশ উদ্ধার গাংনীতে এক কৃষককে ফাঁসানোর অভিযোগ আজ ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস ॥ সীমিত পরিসরে পালনের প্রস্তুতি উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান টুপি সহিদুলের কিল-ঘুষিতে বৃদ্ধ ইস্রাফিল নিহত জুয়ার আসর থেকে নগদ টাকা-জুয়াখেলার সরঞ্জামসহ গ্রেফতার-২ বেগমপুরের হরিশপুর সড়কের গাছ চুরিকালে চোর পাকড়াও দামুড়হুদার ডুগডুগী কাঁচাবাজার তদারকী করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলারা চুয়াডাঙ্গায় করোনা পরিস্থিতিতে ভ্রাম্যমাণ সবজি ভ্যান কার্যক্রমের উদ্বোধন গাংনীর কাজীপুরে অগ্নিকাণ্ডে ৪টি বসতবাড়ী ভস্মীভূত ॥ ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি ঝিনাইদহের গণিত-পদার্থ বিজ্ঞানের এক সময়ের মেধাবী ছাত্রের দিন কাটে পথে পথে

আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল থাকায় বৃদ্ধ বয়সেও এসে তৈলের ঘানি টানতে হচ্ছে মজাহার আলীর

লালমনিরহাট থেকে রশিদুল ইসলাম রিপন:

লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের আলোকদিঘি গ্রামের মজাহার আলী (৮৫)। আর্থিকভাবে অস্বচ্ছল থাকায় বৃদ্ধ বয়সেও এসে তৈলের ঘানি টানতে হচ্ছে।

জানা গেছে, ৫জন ছেলে-মেয়েসহ ৭সদস্য বিশিষ্ট পরিবারটির ভরণ-পোষণ করতেই তার অর্জিত টাকা শেষ হয়। টাকা জমানোর কোন সুযোগ হয়না। মজাহার আলীর ছেলে আমিনুল ও আজিজুল, ২জনই বিয়ের কিছুদিন পরেই আলাদা হয়। ফলে তাঁর সংসার চালানো কষ্টকর হয়ে পরে। মজাহার আলীর ৩মেয়ে মজিদা বেগম, মোর্শেদা বেগম ও কুলছুমকে বিয়ে দেওয়ার সময় যে পরিমাণ যৌতুকের টাকা গুনতে হয়েছিল, তাতে তিনি একবারেই নিঃস্ব হয়ে পড়েন।

মজাহার আলী বর্তমানে কিভাবে দিন যাপন করছেন তা জানতে চাইলে তিনি বলেন, তার বড় ছেলের তৈরী করা ঘরের একটি রুম তাঁকে থাকার জন্য দেওয়া হয়েছে। মজাহার আলী ও তাঁর স্ত্রীসহ কোন মতে সেখানে নিদ্রাযাপন করেন।

মজাহার আলীর এ পেশার কথা জানতে চাইলে তিনি আরও বলেন যে, দীর্ঘ ৬০বছর হয় তিনি এই কাজ করে আসছেন, ১০বছর বয়সে তার বাবার সাথে কাজ করতেন। বাকী ৫০বছর তিনি নিজেই এ কাজ করে আসছেন। আশেপাশের গ্রাম থেকে বাকীতে সরিষা কিনে উক্ত সরিষা থেকে তৈল তৈরী করে বাজারে বিক্রি করে, বকেয়া টাকা পরিশোধ করেন। এছাড়াও তিনি বিভিন্ন হাট-বাজারে গিয়ে সরিষা ক্রয় করেন।

মজাহার আলীর কাছে সরিষার তৈলের দাম জানতে চাইলে তিনি বলেন, ১কেজি সরিষার তৈল এবং খৈয়ল বিক্রি করে ২শত থেকে ২শত ৫০টাকা। এ দর সরিষা আমদানি বেশি হলে অনেক কমে যায়।

তেলী পরিবারটিতে গিয়ে দেখা যায়, বাড়ির উঠানে ছনের চালায় ঘরের স্থাপনা তৈরী করা হয়েছে। গাছের গুঁড়ি দিয়ে তৈরি তৈলের ঘানিটি। গ্রাম্য ভাষায় সেটিকে বলা হয় তৈলগাছ। বর্তমানে সেখানে স্ত্রীর সহযোগিতায়, গরু দ্বারা ঘানি টানছেন তিনি। উদ্দেশ্য সরিষা হতে তৈল তৈরি ও বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করা। সহায় সম্বল বলতে পৈত্রিকভাবে পাওয়া বাড়ি ভিটার ৫শতক জমি যেখানে টিনের তৈরী ১টি ঘর এবং তৈল গাছটি দেখা যায়।

মজাহার আলীর বর্তমানে যে গরুটি রয়েছে তা প্রায় কর্ম অক্ষ্যম। নতুন একটি গরু কিনবে সে টাকাও জোটেনা তাঁর। একটি গরু কেনার টাকা সহযোগিতা পেলে, যা দিয়ে ঘানি টেনে নিস্কৃতি পেতে পারেন অসহায় মজাহার আলী ও তাঁর তেলী পরিবারের সকল সদস্য।

মজাহার আলীর কাছে খাঁটি সরিষার তৈল কিনে চরখাটামারী এলাকার মোঃ আসাদুল হক (৩৫) তিনি নিজের প্রয়োজনে ব্যবহার করে এবং সাথে কবিরাজিও করেন।

কুলাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের ৮নং ওয়ার্ডের সদস্য রফিকুল ইসলাম রফিক বলেন, ইতিপূর্বেই তারা ধোপা, নাপিত, কুলি ও তেলী এ রকম শ্রেণির পেশার তালিকা সমাজসেবা অধিদপ্তরের দেওয়া হয়েছে কিন্তু মজাহার আলীর নাম আছে কিনা সঠিকভাবে বলতে পারেনা।

কুলাঘাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইদ্রিস আলী বলেন, ইতিপূর্বে এ রকম শ্রেণির পেশার যারা আছেন তাদের তালিকা ইতিমধ্যে জমা দিয়েছেন। কিন্তু তার নাম আছে কি না সে বিষয়ে কিছু বলতে পারবেন না।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT