রবিবার, ২৫ Jul ২০২১, ০৯:৪৩ অপরাহ্ন

সিরাজগঞ্জ রায়গঞ্জ উপজেলা সলঙ্গায় ১৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার পাচ্ছে পাকা বাড়ি

সিরাজগঞ্জ থেকে ফারুক আহমেদঃ
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুত প্রতিটি ঘরহীন মানুষকে ঘর তৈরি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
সারা দেশে গৃহ ও ভূমিহীন ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩টি ঘরহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে পাকা টিন – শেড বাড়ি নির্মাণ করে দিচ্ছে সরকার। ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশে কোনো মানুষ গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন নির্দেশের পর এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতিটি বাড়ি নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা। সে হিসেবে এ কর্মসূচিতে মোট ব্যয় হবে ১৫ হাজার ৮২ কোটি টাকা। এরই অংশ হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ-২ প্রকল্প, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিয়ে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে এর আওতায় প্রাথিমক পর্যায়ে প্রথম ধাপে সিরাজগঞ্জ রায়গঞ্জ ঊপজেলা সলঙ্গা থানার ৩নং ধুবিল ইউনিয়নের ‘ক’ ২নং ওয়ার্ড আমশড়া গ্রামের প্রভাশাল ভূগ্রাসি দখলদারদের কাছ থেকে ৩০শতক খাস জমি উদ্দার করে ১৫টি ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য তৈরি করা হচ্ছে টিনসেট পাকা বাড়ি। জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকীর বছরে অর্থাৎ মুজিববর্ষে এটিই হবে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার। আগামী মার্চের মধ্যে এ কর্মসূচি বাস্তবায়নের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।
এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা এবার সারা দেশের ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩টি গৃহ ও ভূমিহীন পরিবারকে একটি পূর্ণাঙ্গ পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
সিরাজগঞ্জ রায়গঞ্জ উপজেলার সহকারি কমিসনার (ভূমিকর্মকর্তা) সুবির কুমার দাস তিনি এই প্রতিনিধিকে বলেন,
এর মধ্যে প্রথম ধাপে ২০০২০ – ২০০২১ সালের অর্থ বছরে ৩০ শতক অংশ খাসজমি সমান ভাগ করে উপজেলা সলঙ্গা থানার ২নং ওয়ার্ডে আমশড়া গ্রামে ‘ক’ প্রথম ধাপে ১৫ জন ঘরহীন ও ভূমিহীন পরিবারের মধ্যে ২শতক করে খাস জমিতে স্বামী স্ত্রী মালিক হিসেবে থাকতে পারিবে। তাছাড়া তার আগে যারা এ ভূমিতে বসবাস রতঅস্থায় ছিলেন তার আগে অগ্রঅধিকার পাবেন। এজন্য সুবিধাভোগীকে কোনো ধরনের টাকা-পয়সা খরচ করতে হবে না। উপজেলা কার্যালয় ইতোমধ্যে সুবিধাভোগীর তালিকা চূড়ান্ত করেছি। আমরা দ্রুত এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এ বিষয়ে ২৩ সেপ্টেম্বর তাগিদ দেয়া হয়েছে।’
তিনি আরো এই প্রতিনিধিকে জানান,
চলতি বছর আওয়ামী লীগ আয়োজিত ঐতিহাসিক ৭ মার্চের আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছিলেন, ‘মুজিববর্ষে বাংলাদেশের কোনো মানুষ ভূমিহীন-গৃহহীন থাকবে না। আমরা মুজিববর্ষ উদযাপনে অনেক কর্মসূচির চিন্তা করছি। জাতির পিতা বলেছেন, বাংলাদেশের মানুষ যেন অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান পায়। তার স্বপ্ন ছিল একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। এজন্য তিনি গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প হাতে নিয়েছিলেন।
তিনি এই প্রতিনিধিকে আরো জানান, প্রধানমুন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন,
এখনও আমাদের দেশে নদীভাঙনে মানুষ গৃহহারা হয়। দেশে কিছু মানুষ খুঁজে পাওয়া যায়, যারা ভূমিহীন, গৃহহীন। আমি চাই মুজিববর্ষ আমরা উদযাপন করছি, এ মুজিববর্ষের ভেতরেই গৃহহীনদের ঘর করে দেব। বাংলাদেশের একটা মানুষও গৃহহীন থাকবে না।’ প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের জুলাইয়ে সরকার জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উদযাপনে ২০২০-২১ সালকে ‘মুজিববর্ষ’ ঘোষণা করে।

আর তার জন্ম তারিখ অর্থাৎ ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয়ে ২০২১ সালের ১৭ মার্চ পর্যন্ত চলবে মুজিববর্ষের কর্মকাণ্ড। ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্ম নেন শেখ মুজিবুর রহমান। কালক্রমে তার হাত ধরেই বিশ্ব মানচিত্রে নতুন দেশ হিসেবে স্থান করে নেয় বাংলাদেশ।

জানা গেছে, ২ মার্চ মন্ত্রিসভার অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে সমন্বয় করে মুজিববর্ষের কর্মসূচি গ্রহণের নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি ‘অহেতুক’ নতুন কর্মসূচি না নিয়ে মন্ত্রণালয় ও বিভাগগুলোকে নিজেদের বাজেট থেকে মানুষের কল্যাণ ও দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারে এমন কর্মসূচি নেয়ার নির্দেশনা দেন।

এরপরই দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে প্রস্তাব করা হয় হতদরিদ্রদের জন্য দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি দেয়ার প্রকল্পটি মুজিববর্ষ উপলক্ষে কর্মসূচি হিসেবে ঘোষণা দেয়া যেতে পারে। তাদের লক্ষ্য ছিল প্রতিটি গ্রামের একজন করে মোট ৬৮ হাজার ৩৮টি পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দেয়া হবে। দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের প্রস্তাবটি বিবেচনায় নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ ও গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পের কর্মকর্তাদের নিয়ে ৩ মার্চ একটি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক করে এটি চূড়ান্ত করা হয়।

সেখানে জানানো হয়, দেশে ৮ লাখ ৮২ হাজার ৩৩টি গৃহহীন পরিবার রয়েছে। এসব পরিবারকে পাকা বাড়ি করে দেয়া হবে। এটিই মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর উপহার। এক তলাবিশিষ্ট দুই বেডের এই পাকা বাড়িতে থাকবে ড্রয়িংরুম, বারান্দা, টয়লেট, কিচেনসহ একটি পরিবারের বসবাসের উপযোগী বাসগৃহ।
ইউনিয়ন ভূমিসহকারী কর্মকর্তা নূজরুল ইসলামের নেতৃত্বে এবং তার তত্ত্বাবাধে প্রকল্পের কাজ খুব দূরুত্ব এগিয়ে চলছে। তিনি আরো জানান, বাকি কাজ চলতি মাসের মধ্যে শেষ করা হবে ইনশল্লাহ।
আপাতত এ প্রকল্পে দুর্যোগ মন্ত্রণালয়ের টিআর-কাবিখার কর্মসূচির সোলার প্যানেল ও বায়োগ্যাস বাবদ ৫০ শতাংশ খরচ স্থানান্তরের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম প্রকল্পের অর্থও সমন্বয় করে এ কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। আগে এসব প্রকল্পের ঘরগুলো ভিন্ন ডিজাইনের হতো। এখন একই ডিজাইনের ঘর নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT