শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৩০ পূর্বাহ্ন

পিতা-পুত্রের পারিবারিক দন্দ্ব মেটাতে ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে উড়িয়ে জীবননগর আসলেন মানবাধিকার সংস্থা

জীবননগর প্রতিনিধি:

চুয়াডাঙ্গার জীবননগরে পিতা-পুত্রের পারিবারিক দন্দ্ব মেটাতে ঢাকা থেকে হেলিকাপ্টার উড়িয়ে আসলেন মানবাধিকার সংস্থার আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশন সদস্যরা। স্থানীয় ভাবে মিটিয়ে ফেলা দন্দ্ব সমাধানের পর আবারো নতুন গোলযোগকে কেন্দ্র করে মানবাধিকার সংস্থার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দকে ঘটা করে আসার বিষয়টি মেনে নিতে পারেনি স্থানীয় জনতা। অবশেষে জনরোষের মুখে স্থানীয় ভাবে মিমাংসার কথা বলে চলে গেলেন মানবাধিকার সংস্থার সদস্যরা। শনিবার দুপুর ১টায় জীবননগর উপজেলার আন্দুলবাড়িয়ায় এঘটনা ঘটে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, জীবননগর উপজেলার আন্দুল বাড়িয়ার বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের সাথে জমি জায়গার ভাগাভাগি নিয়ে প্রথম স্ত্রী শাহিনা বেগম ও তিন সন্তান মোস্তফা আমজাদ,মোস্তফা শাকিল, মোস্তফা তাজওয়ারের সাথে দন্দ্বের সৃষ্টি হয়। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও এলাকার গণ্যমান্য ব্যাক্তিদের হস্তক্ষেপে উভয় পক্ষ গত১১অক্টোবর বিচার সালিশের মাধ্যমে সম্পত্তি ভাগাভাগিসহ চুক্তিনামা সম্পন্ন করেন। এই ঘটনার ক’একদিন পর গত ২০ডিসেম্বর আবারো জমি জায়গাকে কেন্দ্র করে পিতা-পুত্রের মধ্যে গোলযোগ বাঁধে। একপর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মারপিট শুরু হয়, উত্তেজিত জনতা আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের অফিস ভাংচুর করে। এরপর থেকেই পিতা-পুত্রের সম্পর্কে নতুন করে ফাটল ধরে।
আইন সহায়তা কেন্দ ্র(আসক) ফউন্ডেশনের অভিযোগে জানা যায়,আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের ছেলে মোস্তফা তাজওয়ার তার পিতার বিরুদ্ধে প্রথম স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া দ্বিতীয় বিয়ে , অন্যের জমি জোর পুর্বক দখলের অপচেষ্টা, ভাড়াটিয়া মাস্তান দিয়ে হেনস্তা ও উত্তরাধিকার সুত্রে সম্পত্তির সঠিক বন্টন পেতে অভিযোগ দেয়। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাটি(আসক) ফাউন্ডেশনের সহকারি বিভাগীয় প্রধান (ঢাকা জোন)মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ স্বাক্ষরিত ২৮ডিসেম্বর একটি নোটিশ ডাক যোগে অভিযুক্ত আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের নিকট পাঠায়। নোটিশে ২জানুয়ারী বেলা ১২টায় বিবাদির বাড়ির উঠানে তার স্ব-পক্ষে জবাব দেয়ার অনুরোধ জানানো হয়।
শনিবার দুপুর ১টায় নির্ধারিত স্থানে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তারের সভাপতিত্বে সালিশ বৈঠকে উপস্থিত হন, আইন সহায়তা কেন্দ্র (ঢাকা) বিভাগীয় প্রধান লোকমান হোসেন ,আওয়ামী লীগের ধর্ম বিষয়ক উপ-কমিটির সাবেক সদস্য ড: আব্দুল মমিন সিরাজী, ঢাকা হাবিবুল্লাহ বাহার কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম সোহান প্রমূখ।স্থানীয় ভাবে মিমাংসা হওয়া বিষয়টিকে কেন্দ্র করে মানবাধিকার সংস্থার ঢাকঢোল পিটিয়ে আসাকে কোনভাবেই মেনে নিতে পারেনি উপস্থিত জনতা। অবশেষে জনরোষের হাতথেকে বাঁচতে স্থানীয় ভাবে আবারো আপোস মিমাংসার কথা বলে চলে জান আইন সহায়তা কেন্দ্র (আসক) ফাউন্ডেশনের নেতৃবৃন্দ।
অভিযুক্ত আব্দুল লতিফ বিশ্বাস জানান, প্রথম স্ত্রীর অনুমতি নিয়ে আমি দ্বিতীয় বিয়ে করি। দ্বিতীয় পক্ষে আমার অনার্সপড়ুয়া একটি ছেলে সন্তান রয়েছে। আসলে তৃতীয় ব্যাক্তিদের প্ররোচনায় আমার সন্তানরা সম্পত্তি ভাগাভাগির জন্য সংসারে অশান্তি করতো। স্থানীয় ভাবে আমার মানসম্মান নষ্ট ও আর্থিক ভাবে ক্ষতি গ্রস্থ করতে তারা মিমাংসিত বিষয়টিকে নিয়ে কাদা ছোড়াছুড়ি করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT