শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০৮:৫৩ অপরাহ্ন

শিরোনাম
কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় কৃষকের লাশ উদ্ধার গাংনীতে এক কৃষককে ফাঁসানোর অভিযোগ আজ ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস ॥ সীমিত পরিসরে পালনের প্রস্তুতি উপজেলা ভাইসচেয়ারম্যান টুপি সহিদুলের কিল-ঘুষিতে বৃদ্ধ ইস্রাফিল নিহত জুয়ার আসর থেকে নগদ টাকা-জুয়াখেলার সরঞ্জামসহ গ্রেফতার-২ বেগমপুরের হরিশপুর সড়কের গাছ চুরিকালে চোর পাকড়াও দামুড়হুদার ডুগডুগী কাঁচাবাজার তদারকী করলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার দিলারা চুয়াডাঙ্গায় করোনা পরিস্থিতিতে ভ্রাম্যমাণ সবজি ভ্যান কার্যক্রমের উদ্বোধন গাংনীর কাজীপুরে অগ্নিকাণ্ডে ৪টি বসতবাড়ী ভস্মীভূত ॥ ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি ঝিনাইদহের গণিত-পদার্থ বিজ্ঞানের এক সময়ের মেধাবী ছাত্রের দিন কাটে পথে পথে

হামলাকারী যারাই হোক, কঠোর শাস্তি নিশ্চিত করুন

উত্তরাঞ্চলের দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানমের ওপর হামলার ঘটনাটি সবাইকে হতবাক করে দিয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রকাশিত খবরা-খবরগুলি পড়ে মনে হচ্ছে, এটি ছিল মূলত প্রতিশোধ মূলক কোন নিকৃষ্ঠ ও নিষ্ঠুরতম হত্যা প্রচেষ্টা ঘটনা। বর্বরোচিত এই ঘটনার জন্যে নিন্দা জানাই আমরা সকলেই। একজন ইউএনওর বাসায় ঢুকে নৃশংস এ ধরনের হামলার ঘটনা, তাতেও আবার হামলার শিকার যিনি তিনি একজন মহিলা।
গত বুধবার রাত আড়াইটার দিকে দিনাজপুর জেলার ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখের ওপর ভয়াবহ উল্লেখিত নির্মম ও নিষ্ঠুরতম ওই হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা ধারালো অস্ত্র ও হাতুড়ী দিয়ে তাদের মারাত্মক জখম করে। তাদের সারা গায়ে আঘাতের চিহ্ন। ছুরিকাঘাত ও কুপিয়ে তাদের রক্তাক্ত করা হয়। ইউএনও ওয়াহিদার মাথার খুলির হাড় ভেঙে ভেতরে মস্তিষ্কে ঢুকে গেছে। বর্তমানে তিনি রাজধানীর ন্যাশনাল ইনষ্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবার ওপর হামলায় কমপক্ষে দু’জনের অংশ নেয়ার বিষয়ে নিশ্চিত (ভিডিও ফুটেজে) হওয়া গেছে। তবে কারা এবং কী উদ্দেশ্যে হামলা চালিয়েছে সে ব্যাপারে এখনো পর্যন্ত নিশ্চিত হতে পারে নি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ইউএনওর বাসভবনের সিসিটিভি ফুটেজ পর্যবেক্ষণে প্রকাশ, হামলায় অংশ নেয় দুইজন যুবক। এদের মধ্যে একজনের মুখে কাপড় বাঁধা এবং অন্যজন পিপিই পরা ছিল। রাতে তারা এক এক করে ইউএনওর বাসভবনে প্রবেশ করে এবং ঘটনার পর একই সঙ্গে বের হয়ে যায়। সরকারী বাসভবনে মুখোশধারী দুর্বৃত্তদের হামলার ঘটনায় নানা বিষয় সামনে আসছে। কী কারণে কারা ইউএনওর ওপর হামলা করেছে, সে’টি খুঁজতে পুলিশ-র‌্যাবসহ একাধিক সংস্থা তদন্তে নেমেছে। পূর্বশত্রুতা, কারো সঙ্গে বিরোধ, ব্যক্তিগত ইস্যু, স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের ষড়যন্ত্র, চুরি-ডাকাতি না কী অন্য কোনো কারণে এ ঘটনা ঘটেছে,Ñ সে’টি উদ্ঘাটন করতে নানা তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা করে হামলাকারীদের চেহারা শনাক্ত করারও কাজ চলছে। এই নৃশংস হামলার ঘটনায় সন্দেহভাজন দু’জনকে আটক করেছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী। তারাই এ ঘটনায় জড়িত বলে মনে করছে প্রশাসন। জাহাঙ্গীর ও আসাদুল দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ও একই কমিটির সদস্য। তারা উভয়েই এলাকায় মাদকাসক্ত, সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজীর সঙ্গে সরাসরি জড়িত বলে স্বয়ং স্থানীয় এমপি খোলামেলা মন্তব্য করেছেন। ঘটনার পেছনে অন্য কেউ জড়িত কিনা, সে’টিও খতিয়ে দেখা অত্যন্ত জরুরী।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT