বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
জীবননগরে নিখোঁজের ৩ দিন পর আখক্ষেতে রক্তাক্ত গৃহবধুর লাশ উদ্ধার সন্তানকে নিয়ে বিতাড়িত স্ত্রী’র স্বামী-সংসার ফিরে পেতে চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ চান নাটোর গুরুদাসপুর থেকে ট্রাক ভর্তি চালের ক্ষুদ নিয়ে এনে বিক্রির অভিযোগে চুয়াডাঙ্গার সাগর আটক ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর অবদান চেপে রাখা যায়নি: প্রধানমন্ত্রী ২১শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস লালমনিরহাটে ভাষা শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা রেখে রক্তের গ্রুপ নিরূপণ” কর্মসূচি পালন যথাযথ মর্যাদায় দর্শনায় আন্তর্জাতিক মার্তৃভাষা দিবস পালিত চুয়াডাঙ্গায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে আলোচনা সভা-সাংস্কৃতিক-মঞ্চ নাটক অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মেয়েদের নামে জমি দিয়ে বাবা এখন বাড়ি ছাড়া নওগাঁর সাপাহারে লাইসেন্স বিহীন  ২২টি স’মিল চলছে

যে মসজিদের প্রশংসা করেছেন স্বয়ং আল্লাহ তাআলা

 

মক্কার মসজিদুল হারাম, মদীনার মসজিদে নববি ও জেরুজালেমের মসজিদুল আকসার পর ইসলামের ইতিহাসে সবচেয়ে ফজিলতপূর্ণ ও মর্যাদাসম্পন্ন মসজিদ হলো মসজিদে কুবা। এই মসজিদে নামাজ আদায় করলে ওমরাহ’র সমপরিমাণ সওয়াব হওয়ার কথা হাদিসে বলা হয়েছে। নবুওয়তপ্রাপ্তির পর এটিই ইসলামের ইতিহাসে প্রথম নির্মিত মসজিদ। এই মসজিদের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি দেওয়া হলো-

ইসলামের প্রথম মসজিদ

মসজিদে কুবা ইসলামের ইতিহাসের প্রথম নির্মিত মসজিদ। মহানবী (সা.) মক্কা থেকে মদিনায় হিজরত করার সময় মদিনার অদূরে কুবায় এ মসজিদ নির্মাণ করেন। এর আগে মক্কায় তিনি কোনো মসজিদ নির্মাণ করেননি। হিজরতের প্রথম দিন কুবা অবস্থানকালে এই মসজিদের ভিত্তি স্থাপন করেন। মসজিদের নির্মাণকাজে সাহাবাদের সঙ্গে স্বয়ং রাসুল (সা.) অংশগ্রহণ করেন।

অবস্থান  

মক্কা শরিফ থেকে ৩২০ কিলোমিটার উত্তরে এবং মদিনার দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে অবস্থিত এই মসজিদ কুবা গ্রামে অবস্থিত। মসজিদে নববি থেকে এর দূরত্ব মাত্র পাঁচ কিলোমিটার।

নামকরণ

কুবা একটি বিখ্যাত কূপের নাম। সময়ের পরিক্রমায় এ কূপকে কেন্দ্র করে যে জনবসতি গড়ে উঠেছে, তাকেও কুবা বলা হতো। এরই সূত্রে মসজিদের নাম হয়ে যায় মসজিদে কুবা।

কোরআনের ভাষায় মসজিদে কুবা

পবিত্র কোরআনে কুবার অধিবাসী ও  মসজিদে কুবার প্রশংসা করেন আল্লাহ তাআলা। তিনি বলেন, ‘যে মসজিদ প্রথম দিন থেকে তাকওয়ার ওপর প্রতিষ্ঠিত সেখানে অবস্থান করা আপনার জন্য অধিক সংগত। সেখানে এমন কিছু লোক রয়েছে যারা পবিত্রতা পছন্দ করে। আর আল্লাহ পবিত্র ব্যক্তিদের ভালোবাসেন।’ (সুরা : তওবা, আয়াত : ১০৮)

মসজিদে কুবায় নামাজ আদায়ের ফজিলত

মসজিদে কুবায় নামাজ পড়ার অনেক ফজিলতের কথা হাদিসে বর্ণিত হয়েছে । ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণনা করেন, ‘রাসুল (সা.) অশ্বারোহণ করে কিংবা হেঁটে মসজিদে কুবায় আগমন করতেন এবং দুই রাকাত নামাজ আদায় করতেন।’ অন্য এক হাদিসে রয়েছে, ‘প্রতি শনিবারে রাসুল (সা.) কুবায় আগমন করতেন।’ – বুখারি ও মুসলিম

আরেক হাদিসে বর্ণিত আছে, ‘মসজিদে কুবায় নামাজ আদায় করার সওয়াব একটি ওমরাহর সমপরিমাণ।’ -সুনানে তিরমিজি

রাসুল (সা.) আরও ইরশাদ করেন, ‘যে ব্যক্তি নিজের ঘরে ভালোভাবে পবিত্রতা অর্জন করে (সুন্নত মোতাবেক অজু করে) মসজিদে কুবায় আগমন করে নামাজ আদায় করে তাকে একটি ওমরার সমপরিমাণ সওয়াব দান করা হবে।’ -ইবনে মাজাহ

যুগে যুগে সংস্কারকাজ

প্রতিষ্ঠার পর উসমান বিন আফফান (রা.), ওমর বিন আবদুল আজিজ (রহ.), উসমানীয় সুলতান দ্বিতীয় মাহমুদ ও তার ছেলে প্রথম আবদুল মাজিদ প্রমুখ শাসকরা মসজিদে কুবার সংস্কারকাজ করেন। বাদশাহ ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ আলে সৌদের সময় সর্বশেষ সম্প্রসারণ হয়।

মসজিদের বর্তমান অবস্থা

মসজিদে কুবার বর্তমান আয়তন ১৩ হাজার ৫০০ স্কয়ার মিটার। ২০ হাজার মুসল্লি একসঙ্গে নামাজ আদায় করতে পারে এই মসজিদে। মূল মসজিদ ছাড়াও এখানে রয়েছে আবাসিক এলাকা, অফিস, অজুখানা, দোকান ও লাইব্রেরি। তবে মসজিদের মূল আকর্ষণ বিশাল গম্বুজ এবং চার কোণায় চারটি সুউচ্চ মিনার। ১৯৮৬ সালে মসজিদটির পুনর্নির্মাণকালে ব্যাপকভাবে সাদা পাথর ব্যবহার করা হয়। মসজিদের চতুর্দিকের সুবজ পাম গাছের বলয় মসজিদটিকে বাড়তি সৌন্দর্য দিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

© All rights reserved © 2020 DailyAmaderChuadanga.com

 www.bdallbanglanewspaper.com

Design & Developed BY Creative Zoone IT